Home | উন্মুক্ত পাতা | বিজ্ঞপ্তি/বিজ্ঞাপন | লোহাগাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি নুরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ’র বিবৃতি

লোহাগাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি নুরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ’র বিবৃতি

image_printপ্রিন্ট করুন

74

লোহাগাড়া প্রেসক্লাবের তথাকথিত কমিটি ঘোষণার বিষয়ে প্রেসক্লাব সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদের বিবৃতি দিয়েছেন। তা হুবহু তুলে ধরা হলো-

প্রিয় লোহাগাড়াবাসী
আস্সালামু আলাইকুম/আদাব,
আপনারা নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে, চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় কর্মরত জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক পত্রিকার সংবাদকর্মীদের প্রাণপ্রিয় সংগঠন লোহাগাড়া প্রেসক্লাব ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। গত ১৭ নভেম্বর ২০১৮ইংরেজী উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স হলরুমে অত্যন্ত ঝাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশে সর্বশেষ দ্বি-বার্ষিক সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচন পরিচালনা বোর্ডে উপজেলার প্রবীণ সাংবাদিক দৈনিক পূর্বকোণ প্রতিনিধি জনাব এম.এম. আহমদ মনির রিটার্নিং অফিসার, লোহাগাড়া নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম সম্পাদক জনাব অধ্যাপক মো. আবদুল খালেক প্রিজাইডিং অফিসার ও প্রবীণ শিক্ষক হাজী সামশুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব সুনীল কুমার চৌধুরী সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও সার্বক্ষণিক উপস্থিত থেকে প্রশাসনের পক্ষে নির্বাচন মনিটরিং করেন লোহাগাড়া থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী মাসুদ ইব্নে আনোয়ার, উপ-পরিদর্শক সোহেল সিকদার ও আবুল কাসেম। এ দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি পদে ২১ ভোটের মধ্যে সর্বোচ্চ ১২ ভোট পেয়ে দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ প্রতিনিধি বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব নুরুল ইসলাম সভাপতি নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী দৈনিক যায়যায়দিন প্রতিনিধি জনাব আবদুল জব্বার ফিরোজ ৭ ভোট ও দৈনিক যুগান্তর প্রতিনিধি জনাব মো. সেলিম উদ্দীন ১ ভোট পান। এ দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে ২১ ভোটের মধ্যে সর্বোচ্চ ১২ ভোট পেয়ে দৈনিক আমাদের সময় ও পূর্বদেশ প্রতিনিধি জনাব আবুল কালাম আজাদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চ প্রতিনিধি জনাব কাইছার হামিদ ৮ ভোট পান। নির্বাচনের এক সপ্তাহ পর গত ২৫ নভেম্বর ২০১৮ইংরেজী ১৩ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন ও অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রিয় সচেতন লোহাগাড়াবাসী,
এ ঝাঁকজমকপূর্ণ ও উৎসবমূখর দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে নির্বাচিত প্লেসক্লাব নেতৃবৃন্দকে একটি কুচক্রীমহল নিজেদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে না পেরে প্রেসক্লাবের নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থীদের হাতে নিয়ে কিছু আন্ডারগ্রাউন্ড পত্রিকার কথিত সাংবাদিক নামধারী ব্যক্তিদের নিয়ে প্রেসক্লাবকে নিজেদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করার লক্ষ্যে আমাদের প্রাণপ্রিয় সংগঠন দীর্ঘ ৩১ বছর পূর্বে ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠিত “লোহাগাড়া প্রেসক্লাব” এর হুবহু নাম ব্যবহার করে নির্বাচনের ৫ মাস ৮ দিনের মাথায় অর্থাৎ গত ২৬ এপ্রিল ২০১৯ইং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে প্রেসক্লাব’র আরেকটি কমিটি ঘোষণা করেন। যাহা, মোটেই কাম্য নয়। তথাকথিত এ কমিটি নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত হয়েছে মর্মে প্রচার করা হলেও নির্বাচন অনুষ্ঠানের আদৌ কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। বরং, প্রচারিত এ কথিত নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব থাকা ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাঁহারা প্রেসক্লাবের নামে কোন নির্বাচন অনুষ্ঠান কিংবা কোন কমিটি গঠনের ব্যাপারে তাঁরা আদৌ অবগত নন বলে প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দকে মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন। যার মোবাইল ভয়েস রেকর্ড প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের কাছে সংরক্ষিত রয়েছে।

এমতাবস্থায়, লোহাগাড়া প্রেসক্লাবের নাম ব্যবহার করে তথাকথিত ভূঁয়া কমিটি ঘোষণা করা মানে হাস্যকর, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও লোহাগাড়াবাসীকে রীতিমত বিভ্রান্ত করার অপকৌশল ছাড়া আর কিছুই নয়।

অতএব, সচেতন লোহাগাড়াবাসী লোহাগাড়া প্রেসক্লাব’র নামে ঘোষিত তথাকথিত ভূঁয়া কমিটি হতে সাবধান ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।

59093856_426205038165457_575674846302699520_n

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!