Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | সাতকানিয়ায় কালোজিরা ধানের বাম্পার ফলন

সাতকানিয়ায় কালোজিরা ধানের বাম্পার ফলন

image_printপ্রিন্ট করুন

image-3497-1542725877

নিউজ ডেক্স : সাতকানিয়া উপজেলায় অন্যান্য বছরের চেয়ে এ বছর কালোজিরা সুগন্ধি ধানের ফলন হয়েছে অনেক বেশি। অন্যান্য ধানের রং সোনালি হলেও কালোজিরা ধানের রং কালো। এ ধানের মিষ্টি গন্ধে পুরো এলাকা মৌ মৌ করছে এখন। পাকা ধানের গন্ধে মন ভরে গেছে কৃষকের। রং কালো হলেও এ ধানের চাল খেতে অনেক স্বাদ। এ ধানের বাজার মূল্য অন্য ধানের চেয়ে ৩ গুণ বেশি। বর্তমান বাজারে ধানের দাম বেশি থাকায় কৃষকের মুখে ফুটেছে তৃপ্তির হাসি।

সাতকানিয়া কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ১৭টি ইউনিয়নে কালোজিরা ধান রোপণের অর্জিত লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২০ হেক্টর। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সাতকানিয়া ১৭ ইউনিয়নের ধানি বিলে বাতাসে দুলছে শুধু সোনালি রঙের পাকা ধান আর ধান। স্থানীয় কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ বছর জমিতে তারা কালোজিরা ধানের সাথে পাইজাম, বিনা ৭, হাইব্রিড, ব্রিধান-৭২, ব্রিধান-৪১, ব্রিধান-৪৯, ব্রিধান-৫২, বিআর-১১, বিআর-১০, বিআর-২২, বিআর-২৩, বিনি জাতের ধান রোপণ করেছেন। তবে কালোজিরা ধানের আবাদ অন্যান্য বছরের চেয়ে এ বছর বেশি।

উপজেলার সোনাকানিয়া গারাংগিয়া গ্রামের কালোজিরা ধান চাষি মোহাম্মদ সামশুল ইসলাম, বোর্ড অফিস এলাকার মোক্তার আহমদ ও সদর ইউনিয়নের বারদোনা এলাকার মহিউদ্দিন জানান, তাদের রোপিত কালোজিরা ধান ক্ষেত পেকে গেছে ও মাঠে রোগ বালাই কম এবং ফলনও হয়েছে বেশি। কৃষকরা আরো জানান, তারা অন্যান্য ধানও রোপণ করেছেন। এ সবের মধ্যে কালোজিরা ধানের ফলন সবার নজর কেড়েছে। এ ধানের বাজার মূল্য তুলনামূলকভাবে বেশি এবং খেতেও সুস্বাদু। অন্যান্য ধান বাজারে যে দামে বিক্রি হয় এ কালোজিরা ধান বিক্রি হয় তার ৩ গুণ বেশি দামে।

সাতকানিয়া উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা এসএম জহির জানান, আমন ধান রোপণের সময় কালোজিরা ধান রোপণ করা হয়। কালোজিরা ধানের এ বছরের ফলন যথেষ্ট হয়েছে। বাজার মূল্য বেশি হওয়ার কথা স্বীকার করে তিনি জানান, আগের চেয়ে বর্তমানে এ ধানের বাজার দর অনেক বেশি। কৃষকরা যদি অন্যান্য ধানের মতো কালোজিরা ধান বেশি চাষ করেন তা হলে অনেক বেশি লাভবান হবেন।

সূত্র : দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!