Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | যা বললেন রেজাউল-শাহাদাত

যা বললেন রেজাউল-শাহাদাত

image_printপ্রিন্ট করুন

নিউজ ডেক্স : বিরোধী দলের সঙ্গে বিমাতাসুলভ আচরণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন চসিক নির্বাচনে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন। অন্যদিকে সব কিছুতেই অভিযোগ করা বিএনপির স্বভাব বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী।

রোববার (০১ মার্চ) সকালে মনোনয়ন ফরম বৈধতা ঘোষণার পর সাংবাদিকদের কাছে নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন এ দুই প্রার্থী।

এ সময় ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, নির্বাচনের প্রথম দিন থেকে আমরা বিমাতাসুলভ আচরণ লক্ষ্য করছি। তারপরও আমরা নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত থাকবো এবং জয় নিয়েই মাঠ ছাড়বো। যেহেতু চারদিন টানা ছুটির দিন, তাই ৩১ মার্চ নির্বাচন পিছিয়ে দিলে কোন কিছু যায় আসে না। নির্বাচন কমিশন বলছে, বর্ষাকাল ও পরীক্ষার কারণে নির্বাচন এ সময়ে করতে হচ্ছে। কিন্তু ৩১ মার্চ তো কোনো পরীক্ষা নেই এবং বর্ষাও শুরু হচ্ছে না। নির্বাচনের তারিখ আগে থেকে ৩১ মার্চ ঘোষণা করলে পারতো। কাজেই এখনও সময় আছে, তারা যদি চিন্তা করে- এটাকে ৩১ মার্চ করা যায়। – বাংলানিউজ

তিনি আরও বলেন, সেনাবাহিনী শুধু কারিগরি সাপোর্ট দিলে হবে না তাদেরকে ক্ষমতাও দিতে হবে। এছাড়া ভোটকেন্দ্রে অনাকাঙ্ক্ষিত লোকের প্রবেশ নিষিদ্ধ করতে হবে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, বিএনপির স্বভাব শুধু সরকারের সব বিষয়ে অভিযোগ করা। আচরণবিধি লঙ্ঘন করার মতো কাজ আমরা করিনি।  আমরা নির্বাচনের সব বিধি-নিষেধ মেনে চলছি।

ভোটকেন্দ্রে অবৈধদের প্রবেশ বন্ধ করার বিষয়ে বিএনপি প্রার্থীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, ভোটকেন্দ্রে সবাই থাকবে তবে কোন দলগতভাবে নয়। সর্বস্তরের মানুষ যারা সিটি করপোরেশনের ভোটার, তারাই কেন্দ্রে যাবেন।

এর আগে রোববার (০১ মার্চ) সকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে ৯জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে ৭ জনের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

তারা হলেন- আওয়ামী লীগের এম রেজাউল করিম চৌধুরী, বিএনপির ডা. শাহাদাত হোসেন, জাতীয় পার্টির সোলায়মান আলম শেঠ, ইসলামী ফ্রন্টের আল্লামা এম এ মতিন, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মুহাম্মদ ওয়াহেদ মুরাদ,  ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. জান্নাতুল ইসলাম ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আবুল মনজুর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!