Home | লোহাগাড়ার সংবাদ | আমিরাবাদে টংকাবতীর ভাঙনে আতংকিত হাজার পরিবার

আমিরাবাদে টংকাবতীর ভাঙনে আতংকিত হাজার পরিবার

image_printপ্রিন্ট করুন

526

এলনিউজ২৪ডটকম : লোহাগাড়ার আমিরাবাদের টংকাবতী নদীর ভয়াবহ ভাঙনে ইতোমধ্যে বাজার, রাস্তা ও লোকালয় বিলীন হয়ে গেছে। অব্যাহত ভাঙনে উচ্ছেদ আতংকে হাজার পরিবার আতংকিত রয়েছেন। অবিলম্বে নদী শাসন করা জরুরী। নতুবা উত্তর আমিরাবাদ এমবি হাই স্কুল, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বণিক পাড়া, নাপিত পাড়া, তুলাতলী বাজারের অবশিষ্ট দোকানপাট বিলীন হয়ে যাবার আশংকা প্রকাশ করা হয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরে এলাকাবাসীরা বিভিন্ন মহলে যোগাযোগ করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। কিংবা হচ্ছে না। দীর্ঘ ২০ বছর যাবত অনেকে ভাঙন রোধের আশ্বাস নিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হয়েছেন। এলাকাবাসীর চোখের জল ও নদীর জল একাকার হয়ে মিশে গেছে বলে স্থানীয় প্রকৌশলী সুপ্রকাশ বণিক ও সমাজসেবক প্রসঞ্জিত পাল এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন। গত ১৪ সেপ্টেম্বর এ প্রতিনিধি এলাকায় গিয়ে মানুষের দুর্দশা ও ভাঙনের ভয়াবহতা প্রত্যক্ষ করেছেন। জানা যায়, আমিরাবাদ রাজঘাটা হতে টংকাবতী বণিক পাড়া অতিক্রম করে তুলাতলী বাজার হয়ে ডলু নদীতে পড়েছে। টংকাবতী ব্রীজ হতে তুলাতলী বাজার পর্যন্ত একটি সড়ক ছিল। সে সড়ক বর্তমানে নেই। তুলাতলী বাজারও গ্রাস করেছে এ নদী। বর্তমানে এ বাজারে কয়েকটি দোকান অবশিষ্ট রয়েছে। বণিক পাড়ায় টংকাবতীতে স্পার নির্মাণ ও বিপরীত দিকে বাকের সামান্য অংশ কেটে দিলেই নদীর গতি স্বাভাবিক অবস্থায় প্রবাহিত হবে বলে এলাকাবাসীর অভিমত । নতুবা বণিক পাড়ায় এ নদীর গতি পরিবর্তিত হবে।

ইতোমধ্যে ভাঙনের কবলে পড়ে বহু পরিবার অন্যত্র চলে গেছেন বলে গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন । এলাকার এ নদীর ভাঙনের ভয়াবহতা আরাকান সড়কের বার আউলিয়া ডিগ্রী কলেজ রাস্তা ধরে সামান্য পশ্চিম দিকে গেলেই যে কেউ তা প্রত্যক্ষ করতে পারবেন। অনেকে বসতবাড়ি ছেড়ে চট্টগ্রাম কিংবা কক্সবাজারে অবস্থান করছেন বলে জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বাররা কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় এ সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করছে। ভূক্তভোগীরা লোহাগাড়া উপজেলা প্রশাসন, জেলা প্রশাসক, পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সূত্র : সাংবাদিক মোঃ জামাল উদ্দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!