Home | সাহিত্য পাতা | আমার ধষিতা বোনের শাড়ীর আচল দিয়ে, আর একটি রক্তাক্ত পতাকা

আমার ধষিতা বোনের শাড়ীর আচল দিয়ে, আর একটি রক্তাক্ত পতাকা

image_printপ্রিন্ট করুন

51
______জোছনা হক

আমি ঘুমে ভিবোর
জম কালো অন্ধকারে ধর্ষিত হচ্ছে আমার বোন।
আত্নচিৎকারে পৃথিবীর বাতাস ভারী হয়ে আসছে
তবুও থামেনি, শকুন, হায়েনা, দানবের দল।
আমার চোখে প্রতিশোধের রক্ত অশ্রু-
স্বাধীনতার চল্লিশ বছর পর ও বাংলার মাটিতে-
অহরহ বোনের আর্তচিৎকার শুনি-
কখনও ধষনের,কখনও নির্যাতন কখন যৌতকের।
এখনো লাশের গন্ধ পায় কচুরীপানার তলায়-
স্কুল ছাএী ধর্ষিত হচ্ছে-
অপহরনে কত মায়ের বুক খালি হচ্ছে-
যৌতকের কারনে দিয়ে গেল কত প্রান।
এ কেমন স্বাধীনতা?
আমার কুমারী বোনের গর্ভে নস্টা ফসল-
এ লজ্জা কেমনে লুকাই-
এর নাম কি স্বাধীনতা?
এই লাল সবুজের পতকা কি নস্ট পতাকা?
এমন তো হতে পারেনা!
স্বাধীনতা ছিল আমার /আমাদের প্রিয় মানুষের –
রক্তের বিনিময়ে পাওয়া একটি নাম!
পবিএ রক্তে অর্জিত একটি পতকা।
তবে কেন?
চালের গুদামে পোকা-মাকড়ের ভিড়-
অথচ,আমার বুড়ো মা ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে নেমেছে রাস্তায়।
এ কেমন লজ্জা!
এমন স্বাধীনতা কেন?
আমার মা-বাবার ঠিকানা হয় বৃদ্ধা আশ্রমে-
ঘরে-বাইরে স্বাধীনতার নামে পরাধীনতা।
এই পতকা লজ্জার
এই স্বাধীনতা লজ্জার।
নগ্নতা, আর নগ্নতা চারিদিকে-
উল্লাশে মেতে আছে কিছু মানুষ।
অপরিচিত, লাশের কাপনের মোড়ক টেনে-হিচড়ে খাচ্ছে কুকুর-
মহাজনের শ্রমিকের পেটে লাথির আঘাতে -নিরহ শ্রমিক কাতর।
আর কতো?
কতো কাল, স্বাধীনতার নামে এসব চলবে!
আমার ধর্ষিতা বোনের শাড়ীর আঁচল দিয়ে –
আর একটি রক্তাক্ত পতাকা ছাই-
পতাকা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!