Home | সাহিত্য পাতা | বিশ্ব চরাচর

বিশ্ব চরাচর

40422122_276150352993418_574231196125364224_n

______ফিরোজা সামাদ______

জেনে রাখো তুমি সাগরের বুকে যতোই থাকুক জল,
তার থেকেও মানুষের হৃদয়ে ভালোবাসার বসতি প্রবল !
সাগরের প্রেমিকা উর্মিমালা তা-থৈ তা-থৈ নাচিয়া যায়,
নৃত্য শেষে পরিণতি অাছড়ে পড়ে তটিনীর বুকে হায় !
পাহাড়ের ঐ উচ্চতা দেখে বিস্ময়ে হতবাক কি তুমি ?
জানো ?
নিজ স্বত্ত্বাকে তার চেয়ে বেশি উঁচুতে রেখেছি অামি !
চঞ্চলা ঝর্ণা এঁকেবেঁকে বয়ে কোথা যায় অাপনবেগে ?
নদীর সাথেই সখ্যতা যে তার সেই অনাদিকাল থেকে !
মিছিলে মিছিলে অামরা সকলে গিরিপথ ধরে চলি,
চলতে চলতে সময় অসময়ে মুখে মুক্তির কথা বলি !

বোশেখ অাসে সাথে লয়ে তার প্রিয়া কালবৈশাখী ঝড়,
ভাঙ্গে ঘর হারায় স্বজন অাপন করে দেয় পর !
তবুও মানুষ সাজে ফানুস বুকে নেয় বরন করে ,
বোশেখ তার জজ্ঞ চালায় বিজলি ও বৈশাখী ঝড়ে !
সাথে থাকে গ্রীস্মের খরতাপ ও তপ্ত রোদের জ্বালা,
গাঁয়ের কিশোরী সুখ খুঁজে নেয় অাম কুড়ানোর পালা!

কিঙ্কিণী পায়ে বৃষ্টির মেয়ে বলে যায় অাষাঢ় শ্রাবণ,
হাওরবাসি চেয়ে চেয়ে দেখে কী করে অাসে প্লাবণ ?
কোথাও কিষাণ হাসিয়া মুখে পল্লির গান গায়,
অাবার কোথাও অভাগা মানুষ করে শুধু হায় হায় !

শরতের রানি ঝারিয়া গ্লানি বলে নীলাকাশ জেগে রয় ,
শাদা শাদা মেঘ উড়ে উড়ে গিয়ে দোলনায় দোল খায় !
মেঘেদের সাথে পাল্লা দেয় সাড়ি বেঁধে বকের দল,
নদীর কিনারে দোলায় মাথা থোঁকা থোঁকা কাশফুল !

পুকুর বিলে ঝিলে শাপলা পদ্ম হাত ছানি দিয়ে ডাকে,
কতো অানন্দে কিশোরীর দল মুখ লুকায় ফুল ফাঁকে!
রাত গভীরে সুবাস ছড়ায়ে শিউলি লুটিয়ে পড়ে ভোরে,
অাপন খেলায় অাছে মগ্নতায় নিরাকার প্রভু নির্বিকারে !

নিয়ে অাসে হৈমন্তি কন্যা কিষানের কাঁচাসোনা ধান,
সোঁদা সোঁদা গন্ধে মন অাকুলায় জুড়ায় কিষাণীর প্রাণ !
সবুজ পাড়ে হলুদ জমিনে জড়ানো অামার বাংলা মা,
এমন বর্ণিল রূপ সারা বিশ্ব ঘুড়ে তুমি কোথাও পাবেনা!

মায়ের হাতের নকশি কাঁথায় জড়িয়ে অাসে পৌষালি,
মায়ের কোলে প্রিয়ার বুকে থাকে উষ্ণতার মিশালি !
মায়ের হাতের পিঠাপুলি অার খেজুর গাছের রসে,
হাড় কাঁপাণো শীত জড়ানো,কিন্তু ;খাওয়া হেসে হেসে !

ঘাসের বুকে শিশিরের ফোঁটা যেনো একটি খণ্ড হিরে,
চলে পথিক দু’পায়ে মাড়ায়ে চায়না পিছন ফিরে !
বেদনায় কেঁদে শিশির বলে,পথিক ব্যথা দিওনা মোরে,
অামায় দেখেই শান্ত হৃদয় তোমার দু’চোখ জুড়ে !

দখিণা হাওয়ায় মাতাল ফাগুন মাতাল অাগুন হৃদয় ,
গাছের শাখা সবুজে ভরে ফুলেরা সাজে পাখি গায় !
বিরহী কোকিল কেঁদে কেঁদে খুঁজে সঙ্গিনীকে তার !
কান্নার সুরে মাতাল প্রিয়া ফিরে অাসে বাড়বার !

সবুজ অরণ্য বনানী সাজায় ধরণী রাখে শান্ত ছায়,
বাঁচায় মানুষ নয়কো ফানুস তরতাজা সজিবতায় !
বলছি এসো ভালোবাসা দিয়ে সাজাই এই পৃথিবী,
তবেই পাবো দূষণমুক্ত বায়ূ জলরঙে অাঁকা ছবি !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*