ব্রেকিং নিউজ
Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | সারা দেশে বিএনপির লিফলেট বিতরণ বৃহস্পতিবার

সারা দেশে বিএনপির লিফলেট বিতরণ বৃহস্পতিবার

56808_26403_BNP-1

নিউজ ডেক্স : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকাসহ সারা দেশে আগামী বৃহস্পতিবার (১ মার্চ) লিফলেট বিতরণ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি। মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রয়ারি) বিকেলে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিএনপি’র বক্তব্য সম্বলিত লিফলেট স্থানীয় নেতাদের নেতৃত্বে প্রতিটি জেলায় এ কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানান রিজভী।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, ‘গত কয়েক দিন আগে গণমাধ্যমে জানতে পারলাম-আবারো গ্যাস ও জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধির উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। এমনিতেই দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারনে মানুষের ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। তার ওপর চালের মূল্য বর্তমানে আবারো ৫০ থেকে ৭০ টাকা। বর্তমানে সাধারণ মানুষ কোনমতে খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছে। গরিব মানুষরা পেট ভরে ভাত খেতে পায় না। বিদ্যুতের অভাবে এই সেচ মৌসুমে কৃষি কাজ চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। তার ওপর সরকার গ্যাস ও জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির যে উদ্যোগ নিচ্ছে তা শুধু ধ্বংসাত্মক নয়, গরিব মানুষকে পথে বসিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের এই গণবিরোধী ও জনস্বার্থবিরোধী এবং রক্তশোষণের নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবেন বলেই বাক স্বাধীনতা, মানুষের মৌলিক-মানবাধিকার তথা বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রতীক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারারুদ্ধ করা হয়েছে।’

গতকাল দেয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘গতকাল তিনি বলেছেন-দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা সরকার হটানোর ষড়যন্ত্র করছে। আমি বলতে চাই-রাষ্ট্রক্ষমতা দীর্ঘ মেয়াদে ভোগ করতে নীলনকশা করছে আওয়ামী লীগ। বিএনপি চেয়ারপারসনকে মিথ্যা ও জাল নথির মাধ্যমে সাজানো মামলায় কারাগারে পাঠানো সেই নীলনকশারই অংশ।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান, সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমদ, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইসতিয়াক আজিজ উলফাত ও নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান এ মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করেন। রায়ে তারেক রহমানসহ বাকিদের ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার পর ওই দিনই কড়া নিরাপত্তায় খালেদা জিয়াকে ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়। বর্তমানে তিনি সেখানেই বন্দি আছেন।

এ মামলায় গত ২২ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দিনের শুনানি শেষে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এক আদেশে জানান, বিচারিক আদালতের নথি পেলেই খালেদা জিয়ার মামলার আদেশ দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*