Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | সাতকানিয়ার হরিণতোয়া এলাকায় ব্রিজের অভাবে কয়েক হাজার মানুষের দুর্ভোগ

সাতকানিয়ার হরিণতোয়া এলাকায় ব্রিজের অভাবে কয়েক হাজার মানুষের দুর্ভোগ

image_printপ্রিন্ট করুন
1509723723
নিউজ ডেক্স : সাতকানিয়া উপজেলার এক অবহেলিত জনপদের নাম হরিণতোয়া। ছদাহা ও কেওঁচিয়ার কিছু এলাকা নিয়ে এ জনপদটি গঠিত। একটি ব্রিজের অভাবে এখানকার কয়েক হাজার জনসাধারণকে প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কৃষিনির্ভর এ এলাকার জনসাধারণ নিজ উদ্যোগে হাঙ্গর খালের উপর বাঁশের সাঁকো তৈরি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করে আসছে বছরের পর বছর। অথচ দুর্ভোগ লাঘবের কেউ নেই।
গত শুক্রবার সরেজমিনে দেখা যায়, কেরানীহাট-বান্দরবান সড়কের বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার এন্ড স্কুল বাইতুল ইজ্জতের দক্ষিণ পাশের সীমানা ঘেঁষে বয়ে গেছে হাঙ্গর খাল। খালের অন্য পাশে হরিণতোয়া এলাকার অবস্থান। এই এলাকার উত্তর-দক্ষিণ ও পশ্চিম সীমানায় হাঙ্গর খাল আর পূর্বে রয়েছে পাহাড়। এ জনপদে বসবাস করে প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবারের কয়েক হাজার মানুষ। কৃষিনির্ভর এই এলাকার অধিকাংশ মানুষ কৃষক। তাদের অধিকাংশই কৃষি কাজের    উপর নির্ভর করে জীবিকা নির্বাহ করে। এখানকার জনগণের চলাচলের একমাত্র সড়কটিও ভাঙাচোরা। চিকিত্সার জন্য   নেই কোনো স্বাস্থ্য কেন্দ্র। বিজিবির সহযোগিতায় একটি বেসরকারি স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। নেই কোনো উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থা।
এখানকার জনসাধারণ সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এই এলাকার জনসাধারণের প্রধান সমস্যা হচ্ছে একটি ব্রিজ। ব্রিজের অভাবে এখানকার জনসাধারণকে প্রতিনিয়ত দুর্বিষহ জীবনযাপন করতে হচ্ছে। এখানকার লোকজন চাঁদা তুলে খালের উপর একটি বাঁশের সাঁকো তৈরি করে প্রতিটি মুহূর্ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। প্রতিবছর এভাবে রক্তঝরা কষ্টের উপার্জন দিয়ে নিজ উদ্যোগে সাঁকো তৈরি করে জীবনযাপন করে আসছে এখানকার জনগণ। বর্ষা মৌসুমে খালের পানির স্রোতে বাঁশের সাঁকোটি ভেঙ্গে যায় বলে জানান এলাকাবাসী।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, নির্বাচনের সময় জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচনের বৈতরণী পার হওয়ার জন্য খালের উপর ব্রিজটি করে দেওয়ার বার বার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গেলেও নির্বাচনের পরে আর তাদের খোঁজ নিতে কেউ আসে না। তারা জানান, আগে একসময় হাঙ্গর খালের উপর ব্রিজটি নির্মাণের অনুমোদন হয়েছিল। এখন কোনো খবর নেই। অবহেলিত এ এলাকার জনসাধারণ তাদের কষ্ট লাঘবে ব্রিজটি নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেছেন।
সাতকানিয়া উপজেলার কেওঁচিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ মনির আহমদ হরিণতোয়া এলাকার হাঙ্গর খালের ব্রিজের দুর্দশার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে স্কুল-মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীসহ সাধারণ জনগণ চলাচল করছে।
সাতকানিয়া উপজেলার ছদাহা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোসাদ হোসাইন চৌধুরী হরিণতোয়া এলাকার জনগণ বাঁশের সাঁকো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হাঙ্গর খালের উপর দিয়ে যাতায়াতের কথা স্বীকার করে বলেন, ঐ স্থানে একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য স্থানীয় এমপির ডিও লেটার নিয়ে মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছেন। দুই ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী হওয়ার কারণে দেশ স্বাধীনের ৪৭ বছরেও ওই এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। -ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!