Home | লোহাগাড়ার সংবাদ | লোহাগাড়ায় গ্রামীণ সড়ক চলাচল অযোগ্য : জনদূর্ভোগ বৃদ্ধি

লোহাগাড়ায় গ্রামীণ সড়ক চলাচল অযোগ্য : জনদূর্ভোগ বৃদ্ধি

image_printপ্রিন্ট করুন

320

মোঃ জামাল উদ্দিন : লোহাগাড়ার বিভিন্ন ইউনিয়নের আভ্যন্তরীন রাস্তাঘাট চলাচল অযোগ্য হওয়ায় প্রতিদিন এলাকাবাসীরা চলাচলে দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন। নানাবিধ কারণে রাস্তাঘাটের বেহাল দশা বলে ভূক্তভোগীরা জানিয়েছেন। তারা অনতিবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

সরেজমিন ঘুরে এ সংবাদদাতা জানতে পারেন যে, ভারী যানবহান চলাচল, রাস্তার ধারে ইটভাটার কাঁচামাল হিসাবে ব্যবহৃত মাটির স্তুপ, বালি খোয়া রেখে ব্যবসা পরিচালনা, উন্নয়ন কাজে পুকুর চুরি ও দরবেশহাট ডিসি সড়ক মেরামতে দীর্ঘসুত্রিতায় এর অন্যতম কারণ। আধুনগর ইউনিয়নের চেঁদিরপুনি রাস্তার বিভিন্নস্থানে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এলাকাবাসীরা চলাচল করছেন। জঙ্গল পদুয়ার অবস্থা আরো নাজুক। সেখানেও একই অবস্থা। বড়হাতিয়া, চুনতি, আমিরাবাদ প্রভৃতি ইউনিয়নের অভ্যন্তরীন সড়কের বেহাল দশা চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন। লোহাগাড়ার চরম্বা ইউনিয়নে ১৭টি ইটভাটা রয়েছে বলে জানা যায়। এসব ভাটা সড়কের পাশেই অবস্থিত। ভাটায় পাহাড় কাটা মাটি কাঁচামাল হিসাবে ব্যবহৃত হয়। শুকনো মৌসুমে মাটি স্তুপ করে রাখা হয়। সড়কের পাশেই বর্ষাকালে এসব মাটি বৃষ্টি হলে সড়কে জমা হয়। ফলে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়।

সম্প্রতি প্রবল বর্ষণে একই অবস্থা রাস্তায় সৃষ্টি হয়েছে বলে উপজেলা প্রকৌশলী প্রতিপদ দেওয়ান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বিধান রয়েছে সড়কের আধা কিলোমিটার দূরত্বে কোন ইটভাটার মাটি জমা করা যাবে না। অথচ লোহাগাড়ার চরম্বা, চুনতি, পুটিবিলা, কলাউজান, পদুয়া প্রভৃতি এলাকা বিধান না মেনে মাটি জমা করা হয়েছে। যাদের খবরদারী-নজরদারী করার কথা তারা রহস্যজনকভাবে নীরব ভূমিকা পালন করছেন।

দরবেশহাট ডিসি রোড একটি অতীব গুরত্বপূর্ণ সড়ক। এ সড়ক অতিক্রম করে প্রতিদিন অসংখ্য জনসাধারণ বিভিন্ন হাট-বাজার, ব্যবসা কেন্দ্র, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করেন। কিছুদিন আগে রাস্তার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। এলাকাবাসীরা অভিযোগ করেছেন নির্মাণে কচ্চপ গতির ফলে যথাসময়ে কাজ সমাপ্ত হবার আশংকা দেখা দিয়েছে।

অপরদিকে, উপজেলা প্রকৌশলী প্রতিপদ দেওয়ান দাবী করেছেন আশাহত হওয়ার কোন কারণ নেই। যথাসময়ে কাজ সমাপ্ত হবে। এলাকার ডলু একটি ঐতিহাসিক নদী। এ নদী হতে প্রতিদিন অসংখ্য ট্রাকে করে বালি বিভিন্নস্থানে চালান হয়। সন্নিহিত বনাঞ্চল হতে প্রতিদিন কাঠবাহী ট্রাক রাস্তা অতিক্রম করে ভারী যানবাহনের চাপ সহ্য করতে না পেরে গ্রামীণ রাস্তাঘাট নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

এলাকাবাসীরা এ সমস্যা সমাধানের জন্য বিভিন্নভাবে দেন-দরবার করেছেন। লেখালেখি হয়েছে। সমস্যাটি দিন দিন প্রকট আকার ধারণ করছে বলে তারা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। যথাসময়ে ব্যবস্থা গৃহিত না হলে রাস্তাঘাটে পুকুর সমান গর্ত সৃষ্টির আশংকা রয়েছে বলেও এলাকাবাসীরা অভিমত রেখেছেন।

অপরদিকে, লোহাগাড়া উপজেল নির্বাহী অফিসার মোঃ মাহবুব আলম জানিয়েছেন, তিনি এ ব্যাপারে যথাবিহীত ব্যবস্থা নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!