ব্রেকিং নিউজ
Home | সাহিত্য পাতা | নেপথ্যে

নেপথ্যে

390

কামরুননাহার : আশফাকের জন্য রাধতে রুনার খুব ভালো লাগে।আশফাকও বাইরে খেতে চায়না। ঘরের খাবার পছন্দ তার।তার আবার খুব ভয় ছোঁয়াচে অসুখের।তাইতো যত ঝামেলাই হোক বাসায় খেতে চেষ্টা করে সে। আর এক ঝাক কাজের লোক থাকলেও রান্নাটা রুনাই করে। রান্না করতে করতে ভাবছে রুনা, এমন একটা মানুষের জন্য এটুকু কেন? প্রানটাও দিতে পারে সে।

কোন অভিযোগ কেউ করতে পারবে না আশফাকের বিরুদ্ধে। যেমন সে সংসারে সকলের দায়িত্ব পালন করে,ভালোবাসে।তেমন অফিসেও। সকলে ভালোবসে তাকেও। তাইতো এত উন্নতি। সমাজে বিশেষ সম্মান তার।আর টাকার হিসেব? তা বোধ হয় আশফাক নিজেই জানে না কত টাকা তার আছে। রুনা হিরে জহরতে মোড়ানো রানী বলা যায়।

যেমন খেয়াল তার স্ত্রী, সন্তানের প্রতি তেমন চাকর বাকরদের প্রতিও। ঘরে আসবার আগে সার্ভেন্ট কোয়াটারে সামনে যায় কারো কোন অসুবিধা আছে কিনা শোনে। কি যে খুশি সকলে। গর্বে বুক ভরে যায় রুনার। এমন মানুষও হয়।

এইতো সেদিন ড্রাইভার মজিদের বউয়ের বাচ্চা হবে বলে আশফাক গাড়ী,টাকা সব দিয়ে সাহায্য করলো।ডাক্তারকেও ফোন করে বলে দিল। অবশ্য মজিদ তাদের বাড়ী অনেক দিন।ওর মাও এখানে কাজ করতো। তারপর মজিদ। মা মরে গেছে।সহজ সরল মজিদ কোথায় যাবে? রয়ে গেছে এখানে। মজিদের জন্য গ্রাম থেকে রূপবতী, বুদ্ধিমতি মেয়ে এনেছে বৌ করে।ভালো আছে তারা।

মজিদের বাচ্চাকে দেখতে গিয়েছিল রুনা। সোনার চেন দিয়েছে সে।কি মিষ্টি মুখ বাচ্চাটার। মনে হচ্ছে যেন ছোট আশফাক ঘুমিয়ে আছে।তার ছোট ছেলেটি জিগ্যেস করছিল মামনি বেবি আমার কে হয়? রুনা বলেছিল ভাই।

মামনি তোমার সিরিয়াল শুরু হচ্ছে দেখবে না? ছেলের ডাকে চমকে ওঠে রুনা। সারাদিনে এই একটা সিরিয়াল তার খুব পছন্দ। সুলতানের জন্য বাদী পাঠায় নিজে সুলতানা। খুব পছন্দ তার এ সিরিয়াল টা। নিজেকে তার সুলতানা মনে হয়। মনে হয় একমাত্র সেই হাছেকি সুলতান। আর সব হাতুন। একটা জীবনে আর কতো সুখ চাই?

ছেলেেকে পাশে নিয়ে স্বামী গরবিনী রুনা মুগ্ধ হয়ে টিভি দেখছে।

লেখক : শিক্ষিকা ও সাহিত্যিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*