ব্রেকিং নিউজ
Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | আবারো রোহিঙ্গা স্রোত

আবারো রোহিঙ্গা স্রোত

98088292_1f27445b-c705-482

নিউজ ডেক্স : কয়েকদিনের জন্য রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ কিছুটা কমে আসলেও নতুন করে বাংলাদেশের বিভিন্ন সীমান্তে বাড়ছে মায়ানমার থেকে পালিয়ে আসা মানুষের স্রোত। এক সপ্তাহে মায়ানমারের দুই থানার আট গ্রাম থেকে ১ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে এসেছে বলে দাবি করছেন রোহিঙ্গা নেতারা।
দুদিনে মায়ানমার থেকে ২১ হাজার ৮০০ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে বলে দাবি করছে জাতিসংঘের অভিবাসন সংস্থার (আইওএম)। রোহিঙ্গা প্রবেশ বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে আবাসন ও স্যানিটেশন, ও চিকিৎসা সমস্যা। সরকারি বনভূমি ও পাহাড় কেটে গড়ে তোলা হচ্ছে ঝুপড়ি ঘর। তবে পরিস্থিতি এখনো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়নি বলে দাবি করছেন দায়িত্বরত সেনা কর্মকর্তা।
সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত ২৫ আগস্ট থেকে মায়ানমারের সেনা সদস্যদের অত্যাচারে দেশটির মংডু থানার প্রায় সব রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছেন। মিয়ানমার সেনা সদস্যরা এখন বুচিদং ও রাছিদং এলাকায় হামলা চালাচ্ছে। বাংলাদেশ সীমান্ত বদর মোকাম থেকে এ দুই থানার দূরত্ব ২৫ কিলোমিটার। বেশ কয়েকটি পাহাড়, বঙ্গোপসাগরের অংশ সামিলার দড়িয়া পাড়ি দিয়ে তারা বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া মায়ানমারের নাইক্ষাংদিয়া জড়ো হচ্ছেন। মায়ানমার ত্যাগ করতে জীবনের ঝুঁকি নিচ্ছেন। বঙ্গোপসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে উখিয়া উপকূলে ট্রলারডুবির ঘটনায় ইতিমধ্যেই ২১ জন নিহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন আরও অর্ধশতাধিক।
রোহিঙ্গাদের নেতা ডা. জাফর আলম বুচিদং ও রাছিদং এই দুই থানার আওতাধীন ইয়াংমং, তিতারবিল, জাংগামা, মইদং, ছালিপাড়া, গোদাম পাড়া, সাংগামা, জোপাড়া ও প্রিংডম গ্রাম থেকে এক সপ্তাহে ১ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা মিয়ানমারের সামিলার দরিয়া পার হয়ে এপাড়ের জিনজিরা ও শাহপরীর দ্বীপে উঠে। পরে এ সব রোহিঙ্গা টেকনাফ হয়ে উখিয়ার বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিয়েছে।
সাংগামা থেকে কুতুপালাং ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়া মোহাম্মদ লালু (৪৫) জানান, ২০ সেপ্টেম্বর অংসান সুচি সেখানে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়েছিল। কিন্ত ২১ তারিখ থেকে সেনা সদস্যরা গ্রামে ঢুকে ঘরবাড়িতে আগুন দেয়। সব গ্রামের রোহিঙ্গারা সাগর পথে পালিয়ে আসতে শুরু করে।
মিয়ানমারের বুচিদং থানার থামি থেকে পালিয়ে আসা কামাল হোছনের স্ত্রী দীলদার বেগমের (২৫) সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিভিন্ন পাহাড় টিলা ও মেটোপথ পাড়ি দিয়ে ছয় দিন খেয়ে না খেয়ে তিনি নাইক্ষংদিয়া পৌঁছেন। সেখান থেকে সাগর পথে আসেন টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ। পরে কুতুপালং অস্থায়ী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তিনি আশ্রয় নেন।
কুতুপালং ক্যাম্পে আশ্রিত মিয়ানমারের বছিদং থানার মাস্টার হেদায়েতুল ইসলাম জানান, তাদের গ্রামে ১২০ পরিবারের মতো রোহিঙ্গা বসতি ছিল। ইতিমধ্যে শতাধিক পরিবার এপাড়ে চলে এসেছে। মিয়ানমার সেনারা দিনের বেলায় গ্রামে হানা দেয়ার ভয়ে বাকী ২০ পরিবার জঙ্গলে লতা পাতা খেয়ে দিন কাটাচ্ছে।
সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, এক ঘণ্টার ব্যবধানে কুতুপালং রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে ৩৬টি পরিবার আশ্রয় জন্যে আইওএম অফিসে তালিকাভুক্ত হয়েছে। এ সব পরিবারের সদস্য সংখ্যা প্রায় ২০০।
আইওএম কক্সবাজার অফিস সূত্র জানায়, ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মিয়ানমার থেকে ৫ লাখ ১ হাজার ৮০০ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে। ২৫ সেপ্টেম্বর এর সংখ্যা ছিল ৪ লাখ ৮০ হাজার। মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে ২১ হাজার রোহিঙ্গা আইএমও’র নথিতে তালিকাভুক্ত হয়েছে। প্রকৃত সংখ্যা এর অনেক বেশি হতে পারে বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।
বালুখালি ক্যাম্পের ইনচার্জ লে. কর্নেল মোসাদ্দেক আবু সাঈদ জানান, নতুন করে রোহিঙ্গা আসছে। এর ফলে চাপও কিছুটা বাড়ছে। তবে পরিস্থিতি এখনো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার মতো পারবেশ হয়নি। -সুপ্রভাত বাংলাদেশ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*