Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | লন্ডনের টাওয়ার ব্রিজে সুরেলা কণ্ঠে আজান বাংলাদেশির

লন্ডনের টাওয়ার ব্রিজে সুরেলা কণ্ঠে আজান বাংলাদেশির

image_printপ্রিন্ট করুন

আন্তর্জাতিক ডেক্স : পবিত্র রমজান মাসের শেষ শুক্রবার ইফতারের সময় সুরেলা কণ্ঠে আজান ভেসে আসে লন্ডনের বিখ্যাত টাওয়ার ব্রিজে। মসজিদুল হারামের আজানের সঙ্গে সুর মিলিয়ে আজান দেন প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ী কাজী শফিকুর রহমান।

৭ মে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আরব নিউজে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। গত শুক্রবার একটি ভার্চুয়াল ইফতার অনুষ্ঠান উপলক্ষে তিনি মাগরিবের আজান দেন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক শফিকুর রহমান শৈশব থেকেই অত্যন্ত সুন্দর কণ্ঠে আজান দিতে পারেন। মক্কার মসজিদুল হারামের আজান অনুসরণ করে ছোটবেলা থেকে সুমধুর কণ্ঠের আজান দিতে অভ্যস্ত তিনি। তাই ব্রিটিশ-বাংলাদেশিদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তিনি মসজিদুল হারামের সুরে আজান দিয়ে সবাই মুগ্ধ করেন।

শফিকুর বলেন, ‘গত বছর ক্যানারি ওয়ারফে আজান দিয়ে আমি উপলব্ধি করি যে আজান একটি শক্তিশালী বার্তা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে আমি তা বিশ্বব্যাপী প্রচার করতে পারছি। অসংখ্য মানুষ আমার আজান দেখেছে ও শুনেছে। অনেক অমুসলিম আজান শুনে খুবই মুগ্ধ হয় এবং এটি আসলে কী তা জানতে অনুসন্ধান শুরু করে।’

তিনি হারামের প্রধান মুয়াজ্জিন শায়খ আলি আহমদ মোল্লার সুর অনুসরণ করে আজান দেন। ১৯৭৫ সাল থেকে শায়খ মোল্লা মসজিদুল হারামে আজান দিচ্ছেন। মক্কা নগরীতে ভ্রমণ করা বিশ্বের মুসলিমরা তার আজানের সুরের সঙ্গে খুবই পরিচিত।

লন্ডনের বিখ্যাত টাওয়ার ব্রিজে জনসম্মুখে আজান দেয়ার সুযোগ পেয়ে খুবই অভিভূত শফিকুর রহমান। তিনি বলেন, ‘একজন সাধারণ ব্যক্তি হিসেবে এ ধরনের সুযোগ আমার জন্য সত্যিই অবাক করার মতো’।

শফিকুর রহমান গত দুই দশক ধরে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মসজিদ ও অনুষ্ঠানে আজান দিয়ে আসছেন। দ্বিতীয় বারের মতো এবার তিনি লন্ডনের বিখ্যাত স্থানে রমজানে ইফতারের আজান দিলেন।

লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটস হোমস, ইস্ট লন্ডন মসজিদ, লন্ডন মুসলিম সেন্টার ও টাওয়ার হ্যামলেটস ইন্টারফেইথ ফোরামের উদ্যোগে একটি ভার্চুয়াল ইফতার অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়।

গত বছর লন্ডনের অর্থনৈতিক কেন্দ্র ক্যানারি ওয়ারফে আজান দিয়ে শফিকুর ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন। দর্শকরা তার আজানের ভিডিওটি কয়েক ১০ লাখের বেশি দেখে। আগামী বছরও তিনি শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদের মতো বিশ্ববিখ্যাত স্থানে আজান দিতে চান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!