Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | এক-দেড় মাসের মধ্যে স্বাস্থ্যখাতে দৃশ্যমান পরিবর্তন দেখা যাবে : ডিজি

এক-দেড় মাসের মধ্যে স্বাস্থ্যখাতে দৃশ্যমান পরিবর্তন দেখা যাবে : ডিজি

image_printপ্রিন্ট করুন

নিউজ ডেক্স : করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত রোগী ও বন্যাকবলিত এলাকার মানুষের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করাই এ মুহূর্তে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের নবনিযুক্ত মহাপরিচালক (ডিজি) ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম।

তিনি আশা করেন, আগামী এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে স্বাস্থ্যখাতে দৃশ্যমান কিছু পরিবর্তন দেখা যাবে। মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্বগ্রহণের তৃতীয় দিন আজ সোমবার (২৭ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে অনলাইন প্রেস ব্র্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

বক্তব্যের শুরুতে ডা. খুরশীদ আলম জানান, মহাপরিচালক হিসেবে নিযুক্ত হওয়ার পর গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেননি এজন্য যে, অধিদফতরের কার্যক্রম সম্পর্কে তার সম্যক ধারণা ছিল না। ধারণা না থাকায় অনুমানভিত্তিক কথা বললে তা নিয়ে সমালোচনা হতো।

নতুন স্বাস্থ্য মহাপরিচালক বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে এ কাজের ভার দিয়েছেন। মন্ত্রণালয়, আমাদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সচিবসহ সবাই সহযোগিতা করছেন। আমি যেন প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বস্ততার জায়গাটা অটুট রাখতে পারি, সেজন্য সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাবো।

‘দুর্নীতির দায় দেশের প্রতিটি মানুষের’ বলে নিজের মন্তব্যের ব্যাপারে এক প্রশ্নের জবাবে ডা. খুরশীদ আলম বলেন, প্রতিটি ব্যক্তি দেশের দুর্নীতির মাপকাঠি। আপনি ব্যক্তি যদি সৎ না হন, তাহলে মন্ত্রণালয়ের বা দেশের যে অবস্থায় থাকেন না কেন, এটা শুধু আইন-কানুন দিয়ে নির্মূল করা যাবে না। ব্যক্তি সৎ হলে দুর্নীতি হ্রাস পাবে।

তিনি জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তার বাবা গত ৬ জুন মৃত্যুবরণ করেছেন। তার মা ও ভাই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। বৈশ্বিক এ মহামারি মোকাবিলায় সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। তিনি এ ভাইরাস মোকাবিলায় সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাবেন।

নতুন মহাপরিচালক বলেন, করোনা ও বন্যা— এ দুটি দুর্যোগ মোকাবিলা করে স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে প্রচেষ্টা চালাব। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও সচিবসহ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের সব পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্মিলিত সহযোগিতা ও প্রচেষ্টায় এ দুটি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সম্ভব। শতভাগ না হলেও ৯৯ বা ৯০ ভাগ এ দুটি সমস্যার সমাধান করতে পারবো। আগামী এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে দৃশ্যমান কিছু পরিবর্তন দেখা যাবে বলে আমি আশাবাদী।

স্বাস্থ্যখাতের সব বিষয় সমাধানের ব্যাপারে গণমাধ্যমকর্মীদের সহযোগিতা কামনা করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের নবনিযুক্ত এ মহাপরিচালক।

বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা-সমালোচনার মুখে অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ পদত্যাগ করলে গত ২৩ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক পদে নিয়োগ পান ঢাকা মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। জাগো নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!