Home | ব্রেকিং নিউজ | স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে যা ভাবছে সরকার

স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে যা ভাবছে সরকার

image_printপ্রিন্ট করুন

নিউজ ডেক্স : জানুয়ারি শেষে স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে যে আলোচনা চলছে তা এখনই নিশ্চিত নয় জানিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি দেখে এক সপ্তাহ আগে স্কুল-কলেজ খোলার বিষয়ে ঘোষণা দেওয়া হবে।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে এ তথ্য জানা গেছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র বলছে, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির ঘোষণা অনুযায়ী এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য একটি রোডম্যাপ ধরে পরিস্থিতি দেখে এক সপ্তাহ আগে সেই ঘোষণা আসবে।

গত কয়েক বছর ধরে ১ ফেব্রুয়ারি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা এবং ১ এপ্রিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু করে সরকার। তবে মাসের প্রথম দিন ছুটি থাকলে পরবর্তী দিনে পরীক্ষা শুরু করা হয়। চলতি বছরে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হলেও আগামীতে এ দুই পাবলিক পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার আলোচনায় এসেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন সোমবার সন্ধ্যায় বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হলে তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে। তিনি বলেন, আমরা পরিস্থিতি (করোনা) পর্যবেক্ষণ করছি। পরিস্থিতি দেখে শিক্ষামন্ত্রী প্রয়োজনে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে জানাবেন।

মন্ত্রণালয়ের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় খোলার এখনও নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়নি। এক সপ্তাহ আগে ছাড়া সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না। কারণ হঠাৎ করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে গেলে তখন কী হবে?

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক জানান, স্কুল-কলেজ খোলার এখনও চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে সিদ্ধান্ত এলে এ বিষয়ে জানানো হবে।

স্কুল-কলেজ খোলার আগে কিছু প্রস্তুতি নিতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, তখন এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে নির্দেশনা দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, ফেব্রুয়ারিতেও স্কুল-কলেজ খোলা হলে তা অন্তত এক সপ্তাহ আগেই জানানো হবে।

বাংলাদেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর গত ১৭ মার্চ থেকে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক ধাপে বাড়ানোর পর ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি পর্যন্ত বাড়ানো হয়। গত ২৯ ডিসেম্বর অনলাইনে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, আগামী বছরের জুনে এসএসসি এবং জুলাই-আগস্টে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল- এ সময়কালে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্লাসরুমে পড়ানোর উদ্যোগ নেবো, সেই চেষ্টা করছি। পরিস্থিতি যদি অনুকূলে থাকে ২০২১ সালের জুন নাগদ এ পরীক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করবো। স্কুলগুলো খুলে দেওয়ার চেষ্টা করবো। দশম ও দ্বাদশ শ্রেণি যেন নতুন সিলেবাসে ক্লাসে করে পরীক্ষা দিতে পারে।

এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফেব্রুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত হয়তো ক্লাসরুমে নিয়ে ক্লাস করানো হবে। কাস্টমাইজ সিলেবাস ৩১ জানুয়ারির মধ্যে জানিয়ে দিতে পারবো। জুলাই-আগস্ট নাগাদ এ পরীক্ষা নেওয়ার জন্য আশা করছি। বাংলানিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!