Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | সত্য হচ্ছে এলডিপি সভাপতি অলির সন্দেহ !

সত্য হচ্ছে এলডিপি সভাপতি অলির সন্দেহ !

oli news

নিউজ ডেক্স : বাংলাদেশ লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব.) ড. অলি আহমেদ বলেছেন, ‘আমি প্রথম থেকে বলে আসছিলাম সময় খুবই কম। কাজটা খুবই কঠিন। এ কঠিন সময়ের মধ্যে ভাগাভাগির কতদূর সম্পন্ন হবে দেশের মানুষের রাজনৈতিক যে চরিত্র সেটা দেখে আমার সন্দেহ হয়েছিল। জাতির সম্মুখে এলডিপির পক্ষ থেকে সন্দেহগুলো আমি পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করেছি।’

তিনি বলেন, ‘অনেকে হয়ত সেদিন মনঃক্ষুণ্ন হয়েছিল, কষ্ট পেয়েছিল। কিন্তু সময় যত অতিবাহিত হবে ততই বুঝতে পারবে কর্নেল অলি আহমেদ সবাইকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছিল। আজকে সেই কথাগুলো অক্ষরে অক্ষরে সত্য প্রমাণিত হচ্ছে।’

শনিবার (১৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাজধানীর তেজগাঁওয়ে দলীয় কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে অলি আহমেদ এ কথাগুলো বলেন।

তিনি বলেন, ‘আজকেও দেখবেন অনেকগুলো হেডিং ইতোমধ্যে পত্র পত্রিকায় বের হয়েছে। অনেকে অনেক রকম বক্তব্য রাখছে যার কোনো ভিত্তি নেই, ভারসাম্য নেই, যাদের কাছে দুজনও প্রার্থী নেই, তারাও ১৫০ আসন চায়। এভাবে রাজনীতি হয় না, এটা হলো ভাগবাটোয়ারার রাজনীতি।’

তিনি বলেন, ‘ভাগবাটোয়ারার রাজনীতি হবে না। প্রাধান্য দিতে হবে যোগ্যতাকে, জনগণের মধ্যে যার গ্রহণযোগ্যতা আছে তাকে। আমাদেরকে একটা সুন্দর সংসদ, সুন্দর মন্ত্রিসভা গঠন করতে হবে। অন্যথায় দেশের মানুষের জনরোষ থেকে কেউ রক্ষা পাবে না। সুতরাং সময় থাকতে সবাইকে সাবধান করে দিচ্ছি। আগামী দিনগুলো এত সহজে যদি পার পেতে হয়, যদি মনে করেন কেউ পার পাবেন এটা এত সহজ হবে না। এটা কঠিন পথ।’

অলি বলেন, ‘সময় খুবই কম। আগামী আড়াই মাসের মধ্যে ইনশাআল্লাহ নির্বাচন হবে। তবে আদৌ নির্বাচন হবে কি-না তা নিয়ে এখনও আমি নিশ্চিত না। দেশের অবস্থা এক বাক্যে বলবো ভালো না। যে যতই আনন্দ প্রকাশ করুক না কেন।’

তিনি বলেন, ‘আগামী দিন যদি সরকার যারা চালান, আমরা যারা বিরোধী দলে আছি আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান না করি, শুধু নির্বাচনের ঢেউ যদি ঘোষণা করি সবাই নির্বাচনে যাবে। তবে এ নির্বাচনে রক্তপাত হবে। কেউ কাউকে ছাড় দেবে না। সুতরাং আমি অনুরোধ করবো বঙ্গবন্ধু কন্যাকে এখনও সময় আছে দেশ ও মানুষের কথা চিন্তা করে, জনগণের জন্য যেটা ভালো হবে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে অবশ্যই সেই সুরাহা করতে হবে। পুনরায় অনুরোধ করবো বঙ্গবন্ধু কন্যাকে এখনও সময় আছে। সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিন।’

অলি আরও বলেন, ‘দেশবাসীকে বলতে চাই, জাতির একটি ক্রান্তিলগ্ন চলছে। সমগ্র দেশে উৎকণ্ঠা আতঙ্ক এবং অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে। কেউ জানে না আগামী দিন কী হতে যাচ্ছে। সবার মনে একটি প্রশ্ন আদৌ নির্বাচন হবে কি-না। আর যদি নির্বাচন হয় সেই নির্বাচনে আমরা ভোট দিতে পারবো কি-না। জাতির সামনে, যারা সরকারে আছে তাদের সামনে এবং আমরা যারা বিরোধী দলে আছি আমাদের সামনে অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এই চ্যালেঞ্জগুলো যদি ঐক্যবদ্ধভাবে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে মোকাবেলা না করি তাহলে আমি দ্বিতীয়বার বলছি কোনো অবস্থাতেই রক্তপাত এড়ানো যাবে না। কেউ যদি মনে করে ২০১৪ সাল দেশে ফিরে আসবে তাহলে সে বোকার স্বর্গে বাস করছে।’

তিনি বলেন, ‘২০১৪ সাল আর কখনও দেশে ফিরে আসবে না। নির্বাচনের ব্যাপারে সবাই নিজ নিজ জায়গায় অনড়। জোট মহাজোট কেউ কাউকে ছাড়া দেবে না। সরকারের সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য একটা নির্বাচন হবে। তা না হলে মানুষ ঐক্যবদ্ধভাবে রাস্তায় নেমে পড়বে এবং বেশি দিন এটা কেউ সহ্য করবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ঐক্যজোটে আছি, বিএনপি সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল। তারা ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের পক্ষ থেকে শুভ কামনা রইলো। ’

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে এলডিপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদৎ হোসেন সেলিম, কেন্দ্রীয় নেতা মোক্তার আহমেদ চৌধুরী, মো. আব্বাসী, মো. আব্দুল্লাহ, আব্দুল গণি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*