Home | লোহাগাড়ার সংবাদ | লোহাগাড়ায় হাসপাতাল প্রাঙ্গণে সন্তান প্রসবের পর মৃত্যু ঘটনায় ডাক্তার-নার্সকে হাইকোর্টে তলব

লোহাগাড়ায় হাসপাতাল প্রাঙ্গণে সন্তান প্রসবের পর মৃত্যু ঘটনায় ডাক্তার-নার্সকে হাইকোর্টে তলব

10

এলনিউজ২৪ডটকম : লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুর্বব্যবহার করে তাড়িয়ে দেয়ার পর হাসপাতাল প্রাঙ্গণে একজন প্রসূতি সন্তান প্রসবের পর মৃত্যুর ঘটনায় ডাক্তার আবদুল্লাহ আল মামুন ও নার্স ছায়া চৌধুরীকে হাইকোর্টে তলব করা হয়েছে। এডভোকেট মনজিল মোরশেদ এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, লোহাগাড়ার পুটিবিলা গৌড়স্থান এলাকার দিনমজুর মহররম মিয়ার স্ত্রী মরিয়ম বেগম প্রসব বেদনায় কাতর হয়ে গত ৯ মে রাতে সাড়ে ১০টায় লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। পরে তাকে দুর্বব্যবহার করে তাড়িয়ে দেয়ায় তিনি হাসপাতাল প্রাঙ্গণে সন্তান প্রসব করেন। এ ঘটনা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হলে গত ১০ জুন এডভোকেট মনজিল মোরশেদ হাইকোর্টে এক রিট আবেদন করেন এবং ১১ জুন হাইকোর্ট রুল জারী করেছেন।

মনজিল মোরশেদ আরো জানায়, আগামী ১ জুলাই তাদের সশরীরে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলেছেন আদালত। পাশাপাশি, ভুক্তভোগী মরিয়ম বেগমকে চিকিৎসা দিতে হাসপাতালের ব্যর্থতা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। এছাড়া, নবজাতকের জীবন রক্ষায় হাসপাতালের ব্যর্থতা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না এবং মৃত নবজাতকের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে সংশ্লিষ্ট ডাক্তার ও নার্সদের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

চার সপ্তাহের মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ও সেক্রেটারি এবং সিভিল সার্জনসহ সংশ্লিষ্ট মোট নয়জনকে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এক আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে সোমবার ১১ জুন বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ।

এর আগে গত ১০ জুন হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি)-এর পক্ষে মনজিল মোরসেদ রিটটি দায়ের করেন। সেই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এই আদেশ দেন। শুনানিকালে আদালত বলেন, হাসপাতালের দায়িত্ব চিকিৎসা দেওয়া। কিন্তু তারা এ ধরনের আচরণ করতে পারে না।

এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। সে জন্য তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*