Home | ব্রেকিং নিউজ | লোহাগাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ উপহার পেলেন ১৮ গৃহহীন

লোহাগাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ উপহার পেলেন ১৮ গৃহহীন

image_printপ্রিন্ট করুন

এলনিউজ২৪ডটকম : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল দেশের কোনো মানুষ আশ্রয়হীন থাকবে না। সেই স্বপ্ন পূরণে মুজিববর্ষ উপলক্ষে সারাদেশের গৃহহীন-ভূমিহীনদের ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ উপহার দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সারা দেশে ৬৬ হাজার ১৮৯টি পরিবারকে ঘর বুঝিয়ে দেয়া হয়। একসাথে এতো ভূমিহীন-গৃহহীন মানুষকে জমি ও ঘর করে দেয়া বিশ্বে এটিই প্রথম।

এ উপলক্ষে সকালে লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে ১৮ গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেয়া দলিলের মুল সার্টিফিকেট কপি, জমির খতিয়ান, ডিসিআর ও সনদ প্রদান করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জিয়াউল হক চৌধুরী বাবুল ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আহসান হাবীব জিতু।

এ সময় উপস্হিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নীলূফা ইয়াসমিন চৌধুরী, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকের হোসাইন মাহমুদ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ হানিফ, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন আকতার, উপজেলা কৃষি অফিসার মো. মনিরুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মাহবুব আলম শাওন ভূঁইয়া, লোহাগাড়া প্রেস ক্লাব সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ লোহাগাড়া জোনাল অফিসের ডিজিএম সরওয়ার জাহান, পদুয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম, লোহাগাড়া সদর ইউপির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুরুচ্ছাফা চৌধুরী, আমিরাবাদ ইউপির চেয়ারম্যান এসএম ইউনুছ, চুনতি ইউপি চেয়ারম্যান মো. জয়নুল আবেদীন জনু কোম্পানী, বড়হাতিয়া ইউপির চেয়ারম্যান এমডি জুনাইদ চৌধুরী, পুটিবিলা ইউপি চেয়ারম্যান হাজ্বী মোঃ ইউনুছ।

উল্লেখ্য, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনে গুচ্ছগ্রাম-২ (সিভিআরপি) প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় সেমিপাকা ঘরগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি ঘরের জন্য সরকার বরাদ্দ রেখেছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। প্রতিটি বাড়িতে দুটি কক্ষ, সংযুক্ত রান্নাঘর, টয়লেট ও সামনে খোলা বারান্দা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!