ব্রেকিং নিউজ
Home | লোহাগাড়ার সংবাদ | বটতলী ষ্টেশনে তীব্র যানজটে নাকাল যাত্রী-পথচারী

বটতলী ষ্টেশনে তীব্র যানজটে নাকাল যাত্রী-পথচারী

490

এলনিউজ২৪ডটকম : চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের লোহাগাড়া বটতলী মোটর ষ্টেশনে প্রতিদিন তীব্র যানজটে বাসযাত্রী ও পথচারী দূর্বিসহ দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন। খবরদারী-নজরদারী সংস্থার লোকজনের নীরবতায় এ সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করছে। ভূক্তভোগীরা অনতিবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন।

যানজটের কারণ বহু। তার মধ্যে সিএনজি চালিত অটোরিক্সা, ব্যাটারী চালিত রিক্সা, চলাচল যত্রতত্র সিএনসিজ অটোরিক্সার ষ্ট্যান্ড, দৌরপাল্লার বাস ষ্ট্যান্ড, মাইক্রো ষ্ট্যান্ড ও ফুটপাত দখল করে অবৈধ দোকানপাট বসানো যানজটের অন্যতম কারণ বলে ভূক্তভোগীরা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখতে পান পদুয়া ঠাকুরদিঘী হতে চুনতি বাজার পর্যন্ত আরকান সড়কের দু’পাশে রাজনৈতিক পৃষ্টপোষকতায় দোকানপাট গড়ে তোলা হয়েছে। লোহাগাড়া বটতলী মোটর ষ্টেশনে আরকান সড়ক গলি সদৃশ্য অবস্থায় বিদ্যমান। একটি গাড়ি অন্য একটি গাড়িকে সাইড দিতে পারে না। ক্ষমতাসীন দলের পৃষ্টপোষকতায় প্রতিদিন লোহাগাড়া বটতলী মোটর ষ্টেশন থেকে পদুয়া ও চুনতি পর্যন্ত শত শত সিএনজি চালিত অটোরিক্সা চলাচল করে। এজন্য তাদেরকে লক্ষ টাকা চাঁদা গুণতে হয় বলে জনৈক রিক্সা চালক নাম প্রকাশ না করা শর্তে জানিয়েছেন।

তবে লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সালাহ উদ্দিন হিরু দাবী করছেন ক্ষমতাসীন দলের সাথে চাঁদাবাজদের কোন সম্পর্ক নেই। তিনি তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বহুবার বহুস্থানে বলেছেন। ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। হচ্ছেনা।

জনৈক ব্যাটারী চালিত রিক্সা চালক বলেছেন, তারা প্রথমে নির্দিষ্ট স্থানে ৩ হাজার টাকা জমা দিয়ে রাস্তায় এসব যানবাহন চলাচলের টোকের গ্রহণ করেন। পরে প্রতিমাসে ৩শ টাকা জমা দিয়ে টোকেন নবায়ন করতে হয়। লোহাগাড়া বটতলী মোটর ষ্টেশনে শত শত দোকান বসানো হয়েছে ফুটপাত দখল করে। তারাও ত্রিমুখী চাঁদা দিয়ে ব্যবসা করেন। লোহাগাড়া কাঁচা বাজারের সামনে, পোষ্ট অফিসের সামনে, আলুরঘাট রোডের মাথায় ও স্থানীয় দু’টি হাসপাতালের সামনে অবৈধ সিএনজি চালিত টেক্সি ষ্ট্যান্ড রয়েছে। একটি দূরপাল্লার বাস ষ্ট্যান্ড লোহাগাড়া বটতলীতে থাকায় প্রতিদিন এখানে গাড়ি ঘুরানোর সময় দু’দিক থেকে যানবাহনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়।

লোহাগাড়া আইনশৃঙ্খলা সমন্বয় কমিটির সভায় এ ব্যাপারে বহুবার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে। ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। হচ্ছেনা। এখন পর্যটন মৌসুম শুরু হচ্ছে। প্রতিদিন শত শত পর্যটক লোহাগাড়া অতিক্রম করতে এসে যানজটে পড়েন। ঘন্টার পর ঘন্টা তারা গাড়িতে বসে থাকে। দূর্ভোগ পোহান। অপরদিকে, রাস্তার দু’ধারে অবৈধ দখলদারের দৌরাত্মে পথচারীরা চলাচল করতে পারেন না।

এ ব্যাপারে দোহাজারী হাইওয়ে পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, তারা মোজাফফরাবাদ থেকে চুনতি পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। তবে যানজট নিরসন ও জনদূর্ভোগ বন্ধের জন্য সরকারী নির্দেশ রয়েছে যে, সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। তার মধ্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রশাসন, থানা, ট্রাফিক পুলিশ অন্যতম। তারা ব্যবস্থা নিয়ে জরিমানা করতে পারেন। চট্টগ্রাম ট্রাফিক বিভাগও এ ব্যাপারে ভূমিকা রাখতে পারেন। এ সংক্রান্তে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কক্ষে অনুষ্ঠিত সমন্বয় সভায় বহুবার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়েছে। চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি স্বয়ং এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে সার্কুলার জারী করেছেন। জনস্বার্থে রাস্তার দু’পাশ পরিস্কার করা, অবৈধ যানবাহন ষ্ট্যান্ড ও দূরপাল্লার গাড়ির ষ্ট্যান্ড নিয়ন্ত্রণ সময়ের দাবী। ভূক্তভোগীরা অনতিবিলম্বে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের পুণরায় দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*