ব্রেকিং নিউজ
Home | ব্রেকিং নিউজ | চট্টগ্রামে ১১টি বেসরকারি কলেজে ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত

চট্টগ্রামে ১১টি বেসরকারি কলেজে ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত

1439121044_unnamed

নিউজ ডেক্স : বেসরকারি ১১টি কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত করেছে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড। গত বৃহস্পতিবার (৯ মে) এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত অনুমোদন দেয় বোর্ড কর্তৃপক্ষ। এর প্রেক্ষিতে ১২ মে থেকে শুরু হওয়া একাদশ শ্রেণির ভর্তি প্রক্রিয়ার বাইরে থাকতে হবে এসব কলেজকে। ১১টি কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত করার বিষযটি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর শাহেদা ইসলাম। তিনি বলেন, বেশকিছু প্রতিষ্ঠান পাঠদানের অনুমতি ও স্বীকৃতির শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে। অনেক প্রতিষ্ঠান শর্ত পূরণে কোনো পদক্ষেপও নেয়নি। এসব প্রতিষ্ঠানের ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত করা হয়েছে।

শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত হওয়া কলেজগুলোর মধ্যে রয়েছে- বিএস পাবলিক কলেজ, ন্যাশনাল পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, কর্ণফুলী পাবলিক কলেজ, মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজ, মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজ, মেট্রোপলিটন সায়েন্স কলেজ, পটিয়া সেন্ট্রাল কলেজ, ইউনিয়ন কৃষি কলেজ (পটিয়া), সৃজনী ট্রাস্ট কলেজ, লরিয়েড কলেজ এবং আলীপুর রহমানিয়া স্কুল এন্ড কলেজ (হাটহাজারী)। এর মধ্যে আটটি নগরীতে। আর ৩টি কলেজ নগরীর বাইরে।

স্বীকৃতি সংক্রান্ত জটিলতায় এসব কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া আপাতত স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর জাহেদুল হক।

বোর্ড সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে- এসব কলেজের পাঠদানের অনুমতির মেয়াদ শেষ হয়েছে বহু আগে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান অঙ্গীকারনামা দিয়ে গতবার ভর্তি প্রক্রিয়ার আওতায় ছিল। কিন্তু প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে শর্ত পূরণে কোনো ধরনের পদক্ষেপ পরিলক্ষিত হয়নি। যার কারণে এসব কলেজকে ভর্তি প্রক্রিয়ার এসবিজি তালিকার বাইরে রাখা হয়েছে। অর্থাৎ ন্যূনতম প্রয়োজনীয় জিপিএসহ ভর্তির আবেদনযোগ্য কলেজগুলোর তালিকা শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইটে ইতোমধ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। ভর্তি সংক্রান্ত ওয়েবসাইটেও (www.xiclassadmission.gov.bd) এ তালিকা দেয়া আছে।

তালিকায় এই ১১টি কলেজের স্থান হয়নি। অবশ্য, কোনো প্রতিষ্ঠান শর্ত পূরণে অগ্রগতি সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্র সাবমিট করলে তা যাচাই-বাছাই করে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর জাহেদুল হক।

উল্লেখ্য, কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পাঠদানের অনুমতি পেলে তিন বছর পরপর তা নবায়নের বিধান রয়েছে। আর পাঠদানের অনুমতি পাওয়ার পর স্বীকৃতিপ্রাপ্তির জন্য আরো বিভিন্ন শর্ত পূরণ করতে হয় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে। শর্ত পূরণ করলে ওই প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি প্রদান করে শিক্ষাবোর্ড। কিন্তু বেশকিছু প্রতিষ্ঠান একবার পাঠদানের অনুমতি পাওয়ার পর সেটি নবায়ন করেনা। অন্যদিকে, স্বীকৃতি পাওয়ার শর্ত হিসেবে প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণে কোনো ধরনের পদক্ষেপও নেয় না কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান। এক্ষেত্রে বিগত কয়েক বছর ধরে কঠোর অবস্থান নিয়েছে শিক্ষাবোর্ড কর্তৃপক্ষ। যার প্রেক্ষিতে একাদশ শ্রেণির ভর্তি প্রক্রিয়া শুরুর আগ মুহুর্তে ১১টি কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া স্থগিত করলো বোর্ড কর্তৃপক্ষ।

biman-ad

সূত্র : আজাদী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!