ব্রেকিং নিউজ
Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেল লাইনে ৫ বছরেও চালু হয়নি ডেমু ট্রেন

চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেল লাইনে ৫ বছরেও চালু হয়নি ডেমু ট্রেন

P-12-1-15

নিউজ ডেক্স : চট্টগ্রাম–দোহাজারী রেল লাইনে ৫ বছরেও চালু হয়নি ডেমু ট্রেন। ফলে এ পথে যাতায়াতকারীদের মাঝে ক্ষুব্ধ অবস্থা বিরাজ করছে। ২০১৩ সাল থেকে সারা দেশে চালু হলেও এখনো দোহাজারী লাইনে চালু করা সম্ভব হয়নি। সে বছরের ৫ মে চট্টগ্রাম রেল স্টেশনে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কমল কৃষ্ণ ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে চট্টগ্রামে ডেমু ট্রেন সার্ভিসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেছিলেন, কালুরঘাটে নতুন সেতু নির্মাণসহ অতি শীঘ্রই দোহাজারী লাইনেও এ ট্রেন চালু করা হবে। এর পর–পরই স্থানীয় এমপি মইনুদ্দিন খান বাদলও একাধিকবার বিভিন্ন সভায় ডেমু ট্রেন চালু বিষয়ে বলে আসছিলেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৮আগস্ট বোয়ালখালীস্থ তাঁর গ্রামের বাড়িতে আয়োজিত ‘উন্নয়নে সফলতা ও ব্যর্থতা’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন–অতি শিগগিরই চট্টগ্রাম–দোহাজারী রেল লাইনে ডেমু ট্রেন চালু করা হবে। হবে–হচ্ছে করে এভাবেই কেটে গেছে দীর্ঘ পাঁচটি বছর। কিন্তু এখনো দেখা মেলেনি বহুল প্রতীক্ষিত সেই ডেমু ট্রেনের। আগামী সময়টুকুতে দেখা মিলবে কিনা তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউ।

বোয়ালখালী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলার পূর্বাঞ্চল উন্নয়ন সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক সাংবাদিক স ম রবিউল বলেন, একই সাথে অনুমোদন হলেও ১৫ সালের জুলাইয়ে চট্টগ্রাম–নাজিরহাট পথেও চালু করা হয় ডেমু ট্রেন। কিন্তু চট্টগ্রামের জন্য অতিগুরুত্বপূর্ণ প্রায় ৫০ কিলোমিটারের দোহাজারী রেলপথে এখনও কেন এ ট্রেন চালু করা যায়নি তা বোধগম্য নয়। তিনি অতি শিগগিরই মন্ত্রী–এমপিদের প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন চান। অভিযোগ রয়েছে, নানা অজুহাত দেখিয়ে এ পথে ডেমু ট্রেন চলাচল আটকে রাখা হয়েছে। এতে ওই এলাকার হাজার হাজার যাত্রী সরকারের গৃহীত এ সার্ভিসের সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দাবি করে স্থানীয় বোয়ালখালী পৌর সভার প্যানেল মেয়র জোবাইদা বেগম বলেন–এ রুটে প্রচুর যাত্রী রয়েছে বিধায় এখানে ডেমু ট্রেন চালু করলে যাতায়াতে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ কমার পাশাপাশি সরকার এখান হতে প্রচুর পরিমাণ রাজস্ব আদায়ে সক্ষম হবে।

এবিষয়ে চট্টগ্রাম বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (পূর্বাঞ্চল) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, চট্টগ্রাম–দোহাজারী রুটে ডেমু ট্রেন চালানোর দাবি আছে। রেলওয়েরও একটি সুন্দর পরিকল্পনা আছে এ ট্রেন চালু করার। কিছু রেল লাইন ও সেতু মেরামতের কাজ বাকি থাকায় এখানে ডেমু ট্রেন চালুর প্রক্রিয়াটা একটু বিলম্বিত হচ্ছে। সংশ্লিষ্টরা আরও জানান, চট্টগ্রাম থেকে দোহাজারী পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিলোমিটার পথটি রেলের একটি গুরুত্বপূর্ণ রুট। এ রুটে এক সময় প্রতিদিন সকাল–বিকাল ৪ জোড়া ট্রেন চলাচল করত। লোকসানের অজুহাতে ৯০ দশকে একে একে বন্ধ করে দেয়া হয় এখানকার লোকাল ট্রেনগুলো। এতে দক্ষিণ চট্টগ্রামের হাজার হাজার যাত্রীকে প্রায় ২ যুগেরও অধিক সময় ধরে যাতায়তে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

দোহাজারী রুটে ডেমু ট্রেন চালুর দাবি জানিয়ে স্থানীয় এমপি মইনুদ্দিন খান বাদল বলেন, দোহাজারী–নাজিরহাট রুট একই সময়ে চালু হওয়ার কথা। একই প্রকল্পের অধীনে সংস্কার কাজও হয়েছে। কিন্তু নাজিরহাট রুটে ডেমু চলাচল যথা সময়ে শুরু হলেও দোহাজারী রুটের বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি, তা ঠিক নয়। তবে অতি শিগগিরই কালুরঘাট সেতু নির্মাণ ও এ রুটে ডেমু ট্রেন চালুর ব্যাপারে তাঁর আপ্রাণ চেষ্টা রয়েছে বলে দাবি করে তিনি আরো বলেন– এ দু‘টোর বাস্তবায়ন করে যেতে পারলে আমি মরেও শান্তি পাব।

এব্যাপারে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোছলেম উদ্দিন আহমেদ বলেন– দক্ষিণ চট্টগ্রামের মানুষও ডেমু সার্ভিস চায়। চট্টগ্রাম–দোহাজারী রুটে দুই জোড়া ডেমু ট্রেন চালুর জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কাছে দাবি জানান তিনি।

উল্লেখ যে, রেল সূত্রে জানা গেছে ডিজেল–ইলেক্ট্রনিক মাল্টিপল ইউনিট সংক্ষেপে ‘ডেমু’ নামের প্রতিটি ট্রেনে তিনটি বগি আছে। সামনের ও পেছনের বগিতে চালকের বসার কেবিন আছে। এটি সামনে ও পেছন উভয় দিক থেকেই চালানো যায় এজন্য আলাদা কোনো ইঞ্জিনের প্রয়োজন হয় না। ১৮০ ফুট দীর্ঘ এ ট্রেন একসঙ্গে তিন শতাধিক যাত্রী পরিবহনে সক্ষম। এ ট্রেন তুলনামূলকভাবে দ্রুতগতিরও। ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৮০ কিলোমিটার গতিতে চলতে পারে।

biman-ad

সূত্র : দৈনিক আজাদী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!