ব্রেকিং নিউজ
Home | অন্যান্য সংবাদ | স্বাস্থ্যগুণে ভরপুর থানকুনি পাতা

স্বাস্থ্যগুণে ভরপুর থানকুনি পাতা

thankoni

নিউজ ডেক্স : অতি পরিচিত এক খাবার থানকুনি পাতা। সুস্বাদু, আবার বহু গুণে গুণান্বিত। অনেক আগে থেকেই আমাদের দেশে এটি উপকারি শাকপাতা হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। আধুনিক সময়ে বাজারে একটু কমই দেখা যায়। তাই বলে যে পাওয়া যায় না তা নয়। এটা শক্তিশালী হার্বাল হিসেবে উপকারি। বেটে ভর্তা বানিয়ে খেতে পারেন। আবার ব্লেন্ড করে রসও খেতে পারেন। আয়ুর্বেদ চিকিৎসাতেও এই পাতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ঔষধি উদ্ভিদ হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। থানকুনি পাতা সম্পর্কে যাদের তেমন ধারণা নেই, তারা জেনে নিন।

ত্বক ও চুলের যত্ন
এগজিমা বা চুলকানিসহ বিভিন্ন চর্মরোগ সারাইয়ে থানকুনি বেশ কাজের। যারা নিয়মিত থানকুনির রস খান, তাদের ত্ব ও চুলের জৌলুস বাড়ে।

হজমশক্তি
পেটের স্বাস্থ্যের দেখভালে আপনি থানকুনি পাতার ওপর ভরসা রাখতে পারেন। হজম শক্তি বৃদ্ধি করে। থানকুনি পাতার নানা উপাদান দেহে এসিডের মাত্রা সুষ্ঠুমাত্রায় বজায় রাখে। পেটের পিড়া, আমাশয়, আলসার, বাতের ব্যথার ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন এই পাতা।

ক্ষত নিরাময় 
অনেকেই জানেন না, থানকুনি পাতা ক্ষত নিরাময়ে কাজ করে। অনেকটা মলমের মতো। পুরনো ক্ষতে ব্যবহার করলে উপকার পাবেন।

দাঁতের স্বাস্থ্য 
দাঁতের বেশ কয়েকটি রোগ ভালো করতে সক্ষম এই পাতা। যদি থানকুনি পাতার রস নিয়ে কুলকুচি করেন তবে দাঁতব্যথা কমে যাবে।

সর্দি-কাশি
অনেকের সারাবছর সর্দি লেগে থাকে। এ ছাড়া যেকোনো সময় লাগতেই পারে। এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে থানকুনি পাতাতে ভরসা রাখুন। বেটে বা ব্লেন্ড করে রস বানান। তাতে মিশিয়ে নিন মধু। সামান্য পরিমাণ রসের সঙ্গে ১ চামচ মধু মিশিয়ে খেলে রক্তে উপস্থিত ক্ষতিকর উপাদানগুলো দূরীভুত হবে।

ভিটামিন সি 
এটি শক্তিশালী অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে সুপরিচিত। থানকুনিতে আছে ভিটামিন সি। অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এতে আরো আছে অ্যামিনো অ্যাসিড, বেটা ক্যারোটিন, ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ফাইটোকেমিক্যাল। এ সবই দেহের জন্যে দারুণ উপকারী।

বলিরেখা উধাও
বয়সের সঙ্গে ত্বকে বলিরেখা পড়বেই। একে ঠেকানো যায় না। কিন্তু প্রক্রিয়াটাকে ধীরগতির করে দিতে পারেন থানকুনির ত্বকের বলিরেখা কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থানকুনি পাতা।

স্নায়ুতন্ত্র
থানকুনি খেলে কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র স্বাস্থ্যকর থাকে। সংবহনতন্ত্রের স্থায়ীভাবে স্ফীত ও বর্ধিত শিরা সুষ্ঠু পর্যায়ে আনতে কাজ করে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত কোষকে পুণর্গঠনেও থানকুনির কার্যকারিতা অসাধারণ।

মস্তিষ্কের যত্ন 
থানকুনিতে আছে ব্যাকোসাইড এ এবং ব্যাকোসাইড বি নামের উপাদান। এগুলো মস্তিষ্কের কোষের গঠন করতে সহায়তা করে এবং রক্তসংবহন বাড়ায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*