Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | বাঁশখালীর এক যুবককে মোজাম্বিকে হত্যার অভিযোগ!

বাঁশখালীর এক যুবককে মোজাম্বিকে হত্যার অভিযোগ!

image_printপ্রিন্ট করুন

নিউজ ডেক্স : বাঁশখালীর চাম্বল ইউনিয়নের নুরুল ইসলাম (৩২) নামে এক যুবককে দক্ষিণ আফ্রিকার মোজাম্বিকের প্রেম্বা এলাকায় হত্যার অভিযোগ উঠেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রাপ্ত খবর ও প্রবাসীদের সূত্রে এ খবর নিশ্চিত হওয়ায় চাম্বল ইউনিয়নের পূর্ব চাম্বল ৬ নম্বর ওয়ার্ডের চাম্বল পাতলা মার্কেট এলাকার নিহতের বাড়িতে শোকের মাতম বইছে। নুরুল ইসলাম পূর্ব চাম্বলের মুহাম্মদ হোসাইনের পুত্র বলে জানা যায়।

নুরুল ইসলামের ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে ও সেখানে অবস্থারতদের বরাত দিয়ে জানা যায়, গত ১২ সেপ্টেম্বর সকালে তিনি একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজে যাচ্ছে এবং কাজটি সফল হওয়ার জন্য বন্ধুদের দোয়া কামনা করেন। বের হওয়ার পর থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।
নিখোঁজের ৫ দিন পর গত বুধবার দক্ষিণ আফ্রিকার মোজাম্বিকের প্রেম্বা এলাকায় তার গলাকাটা লাশের সন্ধান পাওয়া যায়।

নিহত নুরুল ইসলাম সহ তার ভাই সাইফুল ইসলাম কর্মসংস্থানের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার মোজাম্বিকে পাড়ি জমান। তিনি মোজাম্বিকের পালমা ডিস্ট্রিক্টের পালমাতে এক বাঙালির অধীনে চাকরি করতেন। প্রবাসে তারা সাড়ে ৪ বছর অতিক্রম করেন। নুরুল ইসলাম ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর জন্য ডকুমেন্ট নিয়ে ১২ সেপ্টেম্বর প্রেম্বা শহরের উদ্দেশে বের হন।

মোজাম্বিক থেকে নিখোঁজ নুরুল ইসলামের ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম বলেন, “ভিসা সংক্রান্ত কাজের জন্য শনিবার আমার বড় ভাই তার গাড়ি নিয়ে নিকটস্থ সরকারি দফতরের উদ্দেশে যান। এরপর থেকে তার কোনো খোঁজ খবর পাওয়া যায়নি। তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন নম্বরটিও বন্ধ পাওয়া যায়।”

এ ব্যাপারে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ করেও তার সন্ধান দিতে পারেনি মোজাম্বিক পুলিশ প্রশাসন। তিনি আরো বলেন, “নিখোঁজের ৫ দিন পর বাংলাদেশ সময় বিকাল আনুমানিক ৪টায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাতামিয়া পাহাড়ি এলাকায় আমার ভাইয়ের গলাকাটা লাশের সন্ধান পাই। প্রেম্বা শহর থেকে তাদের আস্তানা পালমা এবং মাতামিয়া পাহাড়ি স্থানের দূরত্ব প্রায় ৬শ’ কিলোমিটার। তারা প্রতিনিয়ত লোকজনদের ধরে নিয়ে হত্যা করে এবং তারা নিজেরাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিহতদের ছবি প্রচার করে।”

এদিকে নিহত নুরুল ইসলামের নিখোঁজের পাঁচদিন পর গলাকাঁটা লাশের খবর পাওয়ার খবরে তার নিজ বাড়ি বাঁশখালীর পূর্ব চাম্বল মাঝর পাড়া এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। দৈনিক আজাদী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: Content is protected !!