ব্রেকিং নিউজ
Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | চাঁদা না পেয়ে গুলি!

চাঁদা না পেয়ে গুলি!

06

নিউজ ডেক্স : সাতকানিয়ায় চাঁদা না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে এক প্রবাসীকে প্রকাশ্যে গুলি করে হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে এক সন্ত্রাসী। গুলিবিদ্ধ প্রবাসীর নাম ওসমান গনি (৫২)। একই ঘটনায় মো. জোবায়ের (১৮) নামের এক কিশোরও গুলিবিদ্ধ হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকালে উপজেলার সোনাকানিয়ার গারাঙ্গিয়া হাতিয়ারপুল বাজারের একটি চায়ের দোকানে এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, সন্ত্রাসী রাজা মিয়া এ ঘটনা ঘটিয়েছে। সে চট্টগ্রাম–১৫ আসনের সাংসদ প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর পিএস ও সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এরফানুল করিম চৌধুরীর লাইসেন্সকৃত অস্ত্র দিয়ে প্রবাসী ওসমান গনিকে গুলি করেছে। তবে এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলেছেন সাংসদ নদভীর পিএস এরফানুল করিম চৌধুরী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোনাকানিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের গারাঙ্গিয়ার হাতিয়ারপুল ফতেহ আলী মহুরী পাড়ার মৃত হাজী আনু মিয়ার পুত্র সৌদিয়া প্রবাসী ওসমান গনি ঘটনার দিন সকাল ১০ টার দিকে হাতিয়ারপুল বাজারে আবুল হাশেমের চায়ের দোকানে বসে নাস্তা করছিল। এ সময় একই গ্রামের ফতেহ আলী মাঝির পাড়ার মৃত ওবাইদুর রহমানের পুত্র এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী রাজা মিয়া অস্ত্র হাতে নিয়ে মোটর সাইকেলযোগে সেখানে আসে। তখন ওসমান গনিকে উদ্দেশ্য করে টাকা দেবে কিনা শেষ বারের মতো বলতে বলে। তার কথা শুনে ওসমান জানায়, আমি আগেও বলেছি আমার কাছে এখন তেমন টাকা পয়সা নেই। বিদেশের অবস্থা ভাল নয়। আমি তোমাকে কোন ধরনের টাকা পয়সা দিতে পারবো না। যেখানে নিজে চলতে কষ্ট হচ্ছে সেখানে তোমাকে চাঁদা দেব কিভাবে ? এসব কথা বলার পরপর রাজা মিয়া মাত্র ৪–৫ ফুট দুরত্ব থেকে ওসমান গনির দিকে অস্ত্র তাক করে প্রকাশ্যে গুলি ছুঁড়ে। এতে ওসমান গনি ও দোকানদার আবুল হাশেমের পুত্র মো. জোবায়ের গুলিবিদ্ধ হয়। পরে দোকানে উপস্থিত লোকজনের ধাওয়া খেয়ে সন্ত্রাসী রাজা মিয়া মোটর সাইকেল ফেলে অস্ত্র নিয়ে পালিয়ে যায়। এরপর এলাকার লোকজন গুলিবিদ্ধ ওসমান গনি ও মো. জোবায়েরকে উদ্ধার করে লোহাগাড়ার মা মণি হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ওসমানকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন ।

লোহাগাড়া মা মণি হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মনজুরুল ইসলাম জানান, ওসমান গনি দুই হাতে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। ডান হাতের অবস্থা খুবই খারাপ। হাতটি প্রায়ই বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। হয়তো ওই হাতটি কেটে ফেলতে হতে পারে। আমরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছি।

গুলিবিদ্ধ প্রবাসী ওসমান গনির বড় ভাই সিরাজুল ইসলাম জানান, আমার ভাই ওসমান গত ২০ দিন আগে সৌদিয়া থেকে দেশে আসে। এরপর থেকে সন্ত্রাসী রাজা মিয়া তাঁর কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। তখন আমার ভাই তাকে বুঝিয়ে বলেছে এই মূহুর্তে তাঁর কাছে টাকা পয়সা নেই। সৌদি আরবের অবস্থাও এখন ভাল নয়। ফলে চাঁদা দিতে পারবে না। চাঁদা দিতে রাজি না হওয়ায় রাজা মিয়া ওসমানকে দেখে নেয়ার হুমকিও দিয়েছিল।

এদিকে, সাংসদ প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর পিএস ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এরফানুল করিম চৌধুরী জানান, আমার লাইসেন্স করা অস্ত্র রয়েছে। এটা সব সময় আমার হেফাজতে থাকে। অন্য কারো হাতে আমার অস্ত্র দেয়ার প্রশ্নই উঠে না। আর রাজা মিয়া নামের কারো সাথে আমার কোন ধরনের সম্পর্ক নেই। এ ধরনের একটি মিথ্যা অভিযোগ কেন করা হচ্ছে তাও বুঝতে পারছি না। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ।

সাতকানিয়া থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই সিরাজুল ইসলাম জানান, ওসমান গনি নামের এক প্রবাসী গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পেয়ে আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘটনাস্থলে যায়। লোকজনের সাথে কথা বলে জানতে পারলাম রাজা মিয়া নামের এক লোক প্রকাশ্যে অস্ত্র হাতে নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। গতকালও নাকি অস্ত্র হাতে নিয়ে মোটর সাইকেলযোগে হাতিয়ারপুল বাজারে আবুল হাশেমের দোকানে এসে লোকজনকে অস্ত্রটি দেখাচ্ছিল। এসময় অসর্তকতার কারনে অস্ত্রের ট্রিগারে চাপ পড়ে এবং ওসমান গনি এবং মো. জোবায়ের নামের দুই জন গুলিবিদ্ধ হন। আমরা যাওয়ার আগেই রাজা মিয়া ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। তিনি আরো জানান, ঘটনা যেভাবেই হোক। তার কাছে যেহেতু অবৈধ অস্ত্র আছে। আমরা তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

সাতকানিয়া থানার ওসি মো. রফিকুল হোসেন জানান, ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে এখনো পর্যন্ত ভিকটিমের পক্ষ থেকে লিখিত বা মৌখিক কোন অভিযোগ পায়নি। -দৈনিক আজাদী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*