ব্রেকিং নিউজ
Home | শীর্ষ সংবাদ | আমার কর্মজীবন এবং বিয়ে

আমার কর্মজীবন এবং বিয়ে

35
মুহাম্মদ সোলাইমান : ছোট বেলা থেকেই আমার ইচ্ছা এবং স্বপ্ন ছিল লেখালেখির পাশাপাশি শিক্ষক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার। সেই মনের ইচ্ছাটা প্রবলভাবে পূরণ করার লক্ষেই নিজেকে নতুনভাবে আবিস্কারের নেশায় জীবন সংগ্রামে নেমে পড়লাম। ২০০৫ সালে ০২নভেম্বর আমার বাবার মৃত্যুর পর পরিবারে নেমে আসে অন্ধকারের অমানিশা। অনেক কষ্টের মাধ্যমে লজিন থেকে, টিউশনি করে নিজের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে যেতে লাগলাম। ২০০৭ সালের শুরুতেই লোহাগাড়া আমিরাবাদের একটি কেজি স্কুলে শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবনে পা রাখলাম। লেখাপড়ার কারণে বেশিদিন ঐ স্কুলে নিজেকে টিকিয়ে রাখতে পারলাম না। এদিকে আমার শিক্ষক হওয়ার নেশা মন থেকে কোনভাবেই মুছতে পারছিলামনা। এরই মধ্যে ২০১০ সালে মনের গহীনে দীর্ঘদিন লুকিয়ে থাকা আমার স্বপ্ন, প্রয়াত সাংবাদিক আব্দুর রহিম আজাদ’র সহযোগিতায় অধ্যাপক মুহাম্মদ আব্দুল খালেক স্যারের পরামর্শে আমার সর্ব প্রথম একক কাব্যগ্রন্থ ‘স্বপ্নীল কাব্য’ প্রকাশের মাধ্যমে স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দিলাম। এর কিছুদিন পর অর্থ্যাৎ ২০১০ সালেই আমার এলাকার আধুনগর আখতারিয়া পাড়ার বড়ভাই বিশিষ্ট লেখক সংগঠক কলামিস্ট মোহাম্মদ হোসেন স্যারের মাধ্যমে হাজী সামশুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করলাম। হাজী স্কুলে দীর্ঘ ৩ বছর শিক্ষকতা করার পর ২০১৩ সালের শেষের দিকে লোহাগাড়া পুটিবিলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গৌড়স্থান উচ্চ বিদ্যালয় তথা দক্ষিণ চট্টগ্রামের অন্যতম বিশেষায়িত স্কুলে সরকারীভাবে শিক্ষকতার সুযোগ করে দিলেন আধুনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্মানিত প্রধান শিক্ষক শ্রদ্ধাভাজন বড়ভাই সমতুল্য শিক্ষকনেতা সংগঠক মাষ্টার আব্দুল খালেক স্যার। গৌড়স্থান স্কুল থেকেই অনেক দুর্লভ সুযোগে ২০১৫ সালের জুলাই মাসে আল্লাহর রহমতে, সকলের দোয়ায় আমি এমপিওভুক্ত হওয়ার সুযোগ লাভ করি। শিক্ষকতার চাকরি স্থায়ী হওয়ার সুবাদে ২০১৭ সালের ৪ঠা সেপ্টেম্বর আমার জন্ম তারিখেই লোহাগাড়ার আধুনগর হাজী মোস্তাক আহমদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা সেলিনা আক্তারের সাথে বিয়ের পিঁড়িতে বসার মাধ্যমে আমার একাকীত্ব জীবনের অবসান ঘটিয়ে যুগল জীবনে পদার্পণের মধ্যদিয়ে লোহাগাড়াবাসীর দীর্ঘদিনের জল্পনা-কল্পনা এবং আলোচনা-সমালোচনার পরিসমাপ্তি ঘটল।
আমার ৩০তম জন্মবার্ষিকীতে বিয়ের পিঁড়িতে বসার ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে আমাকে সহযোগিতা ও উৎসাহ প্রদান করলেন আমার অতি আপনজন শ্রদ্ধাভাজন বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব কলামিস্ট মোহাম্মদ হোসেন এবং মাষ্টার আব্দুল খালেক স্যার। বিশেষ করে আমার চাকরি এবং বিবাহবন্ধনের ক্ষেত্রে আমাকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা প্রদান করায়, প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুল খালেক স্যার এবং কলামিস্ট মোঃ হোসেন সাহেবে সহ সংশিষ্ট সকলের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। এবং সাথে সাথে মহান রাব্বুল আলমীনের নিকটও অসংখ্য শোকরিয়া আদায় করছি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*