ব্রেকিং নিউজ
Home | লোহাগাড়ার সংবাদ | লোহাগাড়ায় প্রবল বর্ষণে ব্যাপক ক্ষতি : ১ ব্যক্তির মৃত্যু

লোহাগাড়ায় প্রবল বর্ষণে ব্যাপক ক্ষতি : ১ ব্যক্তির মৃত্যু

64

মোঃ জামাল উদ্দিন : লোহাগাড়ায় টানা বর্ষণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বন্যার পানিতে ডুবে ২৬ জুলাই দুপুরে বড়হাতিয়ায় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তি হলেন বড়হাতিয়া মাইজপাড়ার মৃত নুরুজ্জমার পুত্র কবির আহমদ ডিপজল (৫২)।

এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন, প্রবল বর্ষণের ফলে ডলু, টংকাবতী, হাতিয়া, পাগলী ও থমথমিয়া ছড়ায় ব্যাপক ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয় এবং গজালিয়া বিল, সেবার বিল, আমিরাবাদ, মহছন চৌধুরী বিলসহ বিভিন্ন বিলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। বন্যার তোড়ে মহছন চৌধুরী পাড়ার গুরা মিয়া ও মোস্তাক আহমদের বাড়ি ভেসে গেছে। তারা বর্তমানে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। এছাড়া বড়হাতিয়ার হাছন বলি পাড়ায় থমথমিয়ার ভাঙ্গনে কয়েকটি বাড়ি ভেসে গেছে বলে প্রকাশ। এছাড়া আধুনগর, সাতগড় নয়া পাড়া, ছাইয়ার পাড়া, ইয়াছিন পাড়ার কয়েকশ পরিবার পানি বন্দী অবস্থায় রয়েছেন।

মৃত কবির আহমদের পারিবারিক সূত্র জানিয়েছেন, তিনি মাইজপাড়া বিলে কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ ধরছিলেন। অসাবধান বশতঃ জাল থেকে মাছ তুলে নেয়ার সময় গভীর খাদে পড়ে যান। মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার লাশ বাড়িতে রয়েছে।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ ফিজনূর রহমান বড়হাতিয়াসহ বিভিন্ন বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তবে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপজেলা প্রশাসনে ক্ষয়ক্ষতির বিস্তারিত বিবরণ জমা না দেয়ায় কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানাতে পারেননি। ভারী বর্ষণ অব্যাহত থাকায় আগামীতে বন্যার আরো ক্ষতির আশংকা করা হয়েছে। প্রবণ বর্ষণের ফলে আরকান সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সংযোগ সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দেয়ায় রাস্তা উপ-রাস্তায় চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি হয়েছে। বড়হাতিয়া সেনেরহাট বাজার, উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়ে রয়েছে। টানা বর্ষণে খেটে খাওয়া লোকজন দুর্বিসহ জীবনযাপন করছেন। হাটবাজারের দ্রব্যমূল্য হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় তাদের দূর্গতির মাত্রা আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে তারা জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*