ব্রেকিং নিউজ
Home | লোহাগাড়ার পরিচিতি ও তথ্য

লোহাগাড়ার পরিচিতি ও তথ্য

লোহাগাড়া

দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐতিহ্যে ঘেরা উপজেলা লোহাগাড়া।

উপজেলার দক্ষিণে চকরিয়া, পশ্চিম বাঁশখালী, উত্তরে সাতকানিয়া এবং পূর্বে পার্বত্যাঞ্চল বান্দরবান। ১৯৮৩ সালে সাতকানিয়া থানা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে লোহাগাড়া থানার সৃষ্টি। ২৫৯.১৯ কিলোমিটার আয়তনের এই উপজেলায় প্রায় ২.৫০ লক্ষ মানুষের বসতি।

লোহাগাড়া উপজেলায় ৯টি ইউনিয়ন রয়েছে। এই উপজেলার নামকরণ নিয়েও একটা জনশ্র“তি আছে। উপজেলার লোহাগাড়া দিঘীর পাড়ে শায়েস্তা খা তৎপূর্বে কিছু সংখ্যক সৈন্য রাত্রি যাপনের জন্যে অবস্থান নিয়েছিল। সৈন্যদের নিরাপত্তার জন্যে দিঘীর পাড়ের চারপাশে কামান বসিয়ে রাখে। লোহার কামান বসিয়ে রাখা থেকে লোকজন লোহাগাড়া হিসেবে আখ্যা দিয়ে আসছে।

শিক্ষা-দীক্ষা, সভ্যতা-সংস্কৃতি, ব্যবসা-বাণিজ্য ও ক্রীড়া-বিনোদনে লোহাগাড়া উপজেলা সমৃদ্ধ। নানা ধর্ম, বর্ণ ও পেশার মানুষের বসবাস এখানে। অতীতে কোন এক সময়ে বিদেশী বণিকদের আগমণও এই উপজেলায় ঘটেছিলো বলে জনশ্র“তি রয়েছে।

আলেম-ওলামা, পীর-মশায়েক, অলি-বুজুর্গ, মুনী-ঋষিদের পদচারণায় ধন্য লোহাগাড়া উপজেলা। যাঁদের সংস্পর্শে ধন্য, মান্য, গণ্য ও সম্মানিত উপজেলাবাসী। আলেম-ওলেমাদের সান্নিধ্যে অগণিত মানুষ তাদের জীবনকে আলোকিত করেছে। এখানে গড়ে ওঠেছে প্রায় শ’খানেক মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অন্যদিকে, প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে ৩টি কলেজসহ শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং প্রায় ৫০টির মতো নিু ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়। ফলে দক্ষিণ চট্টগ্রামে শিক্ষা-দীক্ষার ক্ষেত্রে লোহাগাড়া উপজেলা শীর্ষে উন্নীত।

বলা বাহুল্য অলি-বুজুর্গরা হলেন এই উপজেলার প্রাণ পুরুষ, আলোকিত ব্যক্তিত্ব। বায়তুশ শরফের হযরত আবদুল জব্বার শাহ (রা.), চুনতির শাহ ছাহেব কেবলা (রা.), শাহপীর আউলিয়া, লতাপীর শাহ্ (রা.), আবদুল খালেক শাহ্ (রা.), হযরত বাছেত আলি (রা.), হযরত মাওলানা ফতেহ আলি ফরায়েজি (রা.), মাওলানা মাহামুদুল হক খতিবী (রা.), মাওলানা আবদুস ছমদ (রা.), ছমিউদ্দিন শাহ্ (রা.), মুহাদ্দেছ নজির আহমদ (রা.), পেঠান শাহ্ (রা.), মুহাদ্দেছ আবদুর রশিদ (রা.) সহ অগণিত অলি বুজুর্গরা এই উপজেলার গর্বিত সন্তান।

শিল্পে বাণিজ্যেও লোহাগাড়া উপজেলা শীর্ষে। বলা হয়ে থাকে দক্ষিণ চট্টগ্রামের অন্যতম বাণিজ্যিক রাজধানী ‘লোহাগাড়া’। দেশের শীর্ষ শিল্প প্রতিষ্ঠান নোমান গ্র“প অব ইন্ডাষ্ট্রিজ’র চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম ও মোস্তফা গ্র“প অব ইন্ডাষ্ট্রিজ’র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমানসহ অনেক শিল্পপ্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতার প্রিয় জন্মভূমি লোহাগাড়া। তাছাড়াও উপজেলা সদরে রয়েছে ৯টি বাণিজ্যিক মার্কেট, ১৪টি বাণিজ্যিক ব্যাংক-বীমা, ৮টি প্রাইভেট হাসপাতাল, ৪টি আবাসিক হোটেল, সরকারী রেষ্ট হাউজ (উপজেলা ডাক বাংলো, পদুয়া বনবিভাগের রেষ্ট হাউজ ও চুনতি বনবিভাগ রেষ্ট হাউজ), ১৭টি হাট-বাজার, কক্সবাজারগামী দেশি-বিদেশি পর্যটকদের মান সম্পন্ন হোটেল ফোর সিজেন ও হোটেল মিডওয়ে উল্লেখযোগ্য। উপজেলার পদুয়ায় ১টি সরকারী হাসপাতালও রয়েছে।

উপজেলার পূর্ব-দক্ষিণ-পশ্চিম পাহাড় বেষ্টিত হলেও এখানে বেশ কয়েকটি পাহাড়ি নদী প্রবাহিত। ডলু, হাঙ্গর, টংকাবতী ও বোয়ালিয়া অন্যতম। সবুজ গাছ-গাছালি আর পাখ-পাখলির কলতানে মুখরিত এই উপজেলা। সহজ-সরল মেঠোপথের গন্ধ মেখে উপজেলাবাসী আনন্দে বিনোদনে আহ্লাদে জীবন কাটায়। যেমন বলিখেলা ও হা-ডু-ডু গ্রামীণ সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রেখেছে। এছাড়াও ফুটবল, ক্রিকেট, কানামাছি, দাড়িয়াবান্দা, বউছি ও গোল্লাছুট খেলায় মেতে ওঠে এলাকাবাসী।

গ্রামীণ সংস্কৃতি তেমন সমৃদ্ধ না হলেও সামাজিক বিনোদনের ক্ষেত্রে উন্নত বলা চলে। যেমন চুনতির বুলবুল চৌধুরী বাড়ি, চুনতি অভয়ারণ্য ও পুটিবিলার নাসিম পার্ক লোহাগাড়াবাসীকে বিনোদনের মাধ্যমে সতেজ ও প্রফুল্ল করে রাখে। বিশেষ করে চট্টগ্রাম শহর হতে ৭০ কিলোমিটার দক্ষিণে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পশ্চিমে প্রাকৃতিক বনভূমির জীববৈচিত্র সমৃদ্ধ অঞ্চলটি নিয়ে চুনতি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যের অবস্থান। এ বনাঞ্চলে অসংখ্য প্রজাতির ঔষধি বৃক্ষ ও লতাগুল্ম রয়েছে। গর্জন, বৈলাম, তেলসুর, চাপালিশ, চম্পাফুলসহ বিভিন্ন বাঁশ ও বেত। এছাড়াও বন্যপ্রাণী ও বিভিন্ন প্রজাতির পশু-পাখি ও বনবিড়ালের বিচরণ পরিলক্ষিত হয়। উল্লেখ্য, ২০১১ সালে চুনতি অভয়ারন্য জাতিসংঘ ইকুয়েটর পুরস্কার লাভ করেছে।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত লোহাগাড়া উপজেলা। মুক্তিযুদ্ধে লোহাগাড়াবাসীর অবদান চিরস্মরণীয়। আমিরাবাদে ১৯৭১ সালের ৩০ এপ্রিল হানাদার পকিস্তানী ও এদেশীয় দোসরদের সংগঠিত ২২ ব্যক্তির নির্মম হত্যাকান্ড তার স্বাক্ষ্য বহন করছে।

লেখক : অধ্যাপক মুহাম্মদ আবদুল খালেক, সম্পাদক, লোহাগাড়ানিউজ২৪ডটকম।

মাননীয় সংসদ সদস্যের নাম ও মোবাইল নম্বর :
প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভী, মোবাইল ০১৭১৩-১২০২২০

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভাইসচেয়ারম্যানদের নাম ও মোবাইল নম্বর :
এডভোকেট ফরিদ উদ্দিন খান, চেয়ারম্যান, মোবাইল ০১৭১১-৩৮১১২৮
নুরুল আবছার, ভাইসচেয়ারম্যান, মোবাইল ০১৭১১-৬৩০৭০৪
গুলশান আরা বেগম, মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান, মোবাইল ০১৮১৮-৪৪২৯৮৪

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নাম ও মোবাইল নম্বর :
মোঃ মাহবুব আলম, মোবাইল : ০১৭৩৩-৩৩৪৩৫০

থানার অফিসার ইনচার্জের নাম ও মোবাইল নম্বর :
মোঃ শাহজাহান পিপিএম (বার), মোবাইল ০১৭১৩-৩৭৩৬৫০

 ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নাম ও মোবাইল নম্বর :
১। নুরুচ্ছফা চৌধুরী, চেয়ারম্যান, লোহাগাড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮১৮-৬৮৫৭৩৮
২। রফিকুল ইসলাম চৌধুরী, চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত), আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮১১-৪৫৬৩৪২
৩। মোঃ জহির উদ্দিন, চেয়ারম্যান, পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮৪৩-৯৭৫৩৫৩
৪। এমডি জুনাইদ, চেয়ারম্যান, বড়হাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮১৮-৪৪২৬১৯
৫। এম. ওয়াহেদ, চেয়ারম্যান, কলাউজান ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৯৪২-৭০৯০৫৪
৬। শফিকুর রহমান, চেয়ারম্যান, চরম্বা ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮১৯-৭০৪৬৭৮
৭। আইয়ুব মিয়া, চেয়ারম্যান, আধুনগর ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৭২০-০২২৫৫১
৮। জয়নুল আবেদীন জনু, চেয়ারম্যান, চুনতি ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮৪৩-৫৩৩৬১৬
৯। মোঃ ইউনুছ, চেয়ারম্যান, পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদ। মোবাইল : ০১৮৬৪-৩০৩৪১২

ইউনিয়ন পরিষদ সচিবদের নাম ও মোবাইল :
১। পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮১৮-৫৭৫৮৩৬
২। বড়হাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮১৮-১৭৮৬৬১
৩। আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮১৫৬৯৫৯৪২
৪। লোহাগাড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮২৩-৬৯২৪২৪
৫। কলাউজান ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮২২-৫৬৪২০৩
৬। চরম্বা ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮২৯-৮১২১১০
৭। আধুনগর ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮১৪-৪৮৫৯৮৮
৮। চুনতি ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮২৪-০০৫৮৬৬
৯। পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল ০১৮১৮-৪৫৭২৩৪

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*