ব্রেকিং নিউজ
Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | রামুতে কৃষক সমাবেশে খাদ্য কর্মকর্তাসহ কালোবাজারিদের গ্রেফতারের দাবী

রামুতে কৃষক সমাবেশে খাদ্য কর্মকর্তাসহ কালোবাজারিদের গ্রেফতারের দাবী

ramu20150823151321

রামু উপজেলা খাদ্য গুদামে খাদ্যশস্য সংগ্রহে অনিয়মের ঘটনায় জড়িত খাদ্য কর্মকর্তা ও কালোবাজারিদের শাস্তি দাবি করেছেন স্থানীয় কৃষকরা। এছাড়া স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে নিয়ম অনুযায়ী খাদ্যশস্য ক্রয়ের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন তারা।

রোববার বেলা ১১টার দিকে রামু চৌমুহনী স্টেশনে উপজেলা পর্যায়ে মিলারদের মাধ্যমে চাল সংগ্রহ কার্যক্রমে সরকারের দেওয়া ভর্তুকি থেকে বঞ্চিত কৃষকরা এ সমাবেশের আয়োজন করে।

সমাবেশে মুঠোফোনে কৃষকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন, রামু-কক্সবাজার আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল। তিনি বলেন, চাল কেলেঙ্কারির ঘটনায় জড়িতরা কোনোভাবেই ছাড় পাবেন না। যারা কৃষকদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন তাদের কঠোর শাস্তি হবে।

মানববন্ধন সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ‘দেশ বাঁচাও, কৃষক বাঁচাও’ শ্লোগানে আয়োজিত সমাবেশের উদ্যোক্তা মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদ।

এছাড়াও রামু বিআরডিবির চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজন রামু শাখার সভাপতি মাস্টার মোহাম্মদ আলম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তপন মল্লিক, স্কিম ম্যানেজার ও কৃষক আবদুর রহিম, সাবেক ইউপি সদস্য গোলাম কবির, ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম হোসেন সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

সমাবেশে মুক্তিযোদ্ধা রমেশ বড়ুয়া, রামুর প্রতিনিধিত্বশীল নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সমস্বর এর সভাপতি তানভীর সরওয়ার রানা, রামু উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি নুরুল কবির হেলাল, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ও সাংসদ কমলের ব্যক্তিগত সহকারি মো. আবু বক্কর, রামু উপজেলা কৃষকলীগের সদস্য সচিব মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, রামু উপজেলায় খাদ্য গুদামে জেলা প্রশাসনের অভিযানে ৪৩ মেট্রিকটন চালসহ দুইটি ট্রাক জব্দ করা হলেও এ ঘটনায় জড়িত উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দুর্নীতিবাজ সুজিত বিহারী সেনসহ খাদ্য বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তা, কালোবাজারি সিন্ডিকেট সদস্য এবং অনিয়মে সহায়তাকারী মিলারদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। অথচ চাল সংগ্রহে এতবড় অনিয়মের ফলে রামুর হাজার হাজার কৃষক ভরা মৌসুমে ধান-চালের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

এ ঘটনায় মামলার বাদী হয়েছেন প্রধান অভিযুক্ত উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুজিত বিহারী সেন। এতে কৃষকদের ক্ষোভের মাত্রা আরো বেড়েছে। এ ধরনের হাস্যকর মামলা দুর্নীতিবাজদের রক্ষা কৌশল ছাড়া আর কিছুই নয় বলে দাবি করেন তারা।

সমাবেশে উপজেলার শত শত কৃষক বিভিন্ন দাবি সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*