ব্রেকিং নিউজ
Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | ভিসা হয়নি, ৬৮৮ জন হজে যেতে পারছেন না

ভিসা হয়নি, ৬৮৮ জন হজে যেতে পারছেন না

18435_148

নিউজ ডেক্স : সৌদিআরবে হজে যাওয়ার ভিসা না হওয়ায় এবার যেতে পারছেন না ৬৮৮ জন বাংলাদেশি হজযাত্রী। তবেএর ব্যাখ্যা চেয়ে এজেন্সিগুলোকে চিঠি দিয়েছে হজ অফিস। হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অববাংলাদেশ (হাব) বলছে, স্বেচ্ছায় সরে যাওয়ায় তাঁদের ভিসা হয়নি। রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্পেহজযাত্রীদের অনেকেই ক্ষুব্ধ। এক নারী হজযাত্রীর অভিযোগ, একসঙ্গে তাঁরা পাঁচজন যেতেচেয়েছিলেন। কিন্তু তাঁদের ফ্লাইট পড়েছে আলাদা। এরমধ্যে দু’ জন আগে যাবেন। আর এই কথা তাঁকেআজ সকালে ফোনে জানানো হয়েছে।

আরেক হজযাত্রী অভিযোগ করেন, শেষ সময়ে এসে এজেন্সি বাড়তি টাকা দাবি করছে। যে আমারভিসা করেছে। এখন বলে বাড়তি খরচ দিতে হবে। এবার হজের খরচ বেশি হচ্ছে। ৪০ হাজার টাকাবাড়তি খরচ দিতে হবে’। এদিকে, আরেকজন হজযাত্রীর অভিযোগ, শেষ সময়ে এসে বিমান ভাড়াবেড়েছে জানিয়ে এজেন্সি বাড়তি টাকা চেয়েছে। হজ আবেদন বছরখানেক আগে করা হলেও শেষ সময়েএসে এজেন্সিগুলো হজযাত্রীদের টিকেট ভিসা করে। কেন এমন হয়, প্রশ্ন ছিল ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিতসংসদীয় স্থায়ী কমিটির কাছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বি এইচ হারুন বলেন, ‘যেটা আমাদের সবারইপ্রশ্ন। রেজিস্ট্রেশন হয়ে গেল বছরের শুরু থেকে। শেষ সময়ে এসে দিচ্ছে। কিছুদিন আগে পাসপোর্টহাতে দেওয়া হয়েছে। এটার কারণ কী? এটারও একটা সুষ্ঠু ব্যবস্থা হচ্ছে’।

এ ছাড়া জানতে চাওয়া হয় ৬৮৮ জনের ভিসা না হওয়া প্রসঙ্গে। জবাবে বি এইচ হারুন বলেন, ‘এই যে৭০০ যেতে পারল না, এটা কি মন্ত্রণালয়ের দোষে নাকি সৌদি দূতাবাসের দোষে। আবার কিছু এজেন্সিরকারণে। যে ব্যক্তি পাসপোর্ট দিয়েছে, তারও দোষ আছে। পাসপোর্টের ডেট শেষ হয়ে গেছে, সে দেখবেনা।’

হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাবের মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, ‘৬৮৮ জন স্বেচ্ছায়ড্রপ করেছেন। প্রতিবছরই কিছু যাত্রী স্বেচ্ছায় ড্রপ করেন। আমরা এটা বলি ন্যাচারাল ড্রপ। সরকারিব্যবস্থাপনায়ও ৩৯ জন সেম স্ট্যাটাসের (একই অবস্থা) আছে। স্বেচ্ছায় হজে গমন না করার এইসুযোগটি যাত্রীর নিজস্ব।’

যাত্রীর অভাবে বিমানের ফ্লাইট বাতিল হলেও হাব মহাসচিব ও স্থায়ী কমিটির সভাপতি উভয়েইজানালেন, কোনো যাত্রীরই এ জন্য সৌদি আরব যাওয়ায় সমস্যা হবে না।

এদিকে, সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালন করতে গিয়ে মক্কা ও মদিনায় আরো চার বাংলাদেশি হজযাত্রীমারা গেছেন। বৃহস্পতিবার এই চারজন হজযাএী মারা যান। মক্কায় বাংলাদেশ হজ অফিসের হজকাউন্সিলর মাকসুদুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত চার বাংলাদেশি হজযাত্রীরা হলেন, ঢাকা ডেমরা দুলালপুরের মো. আবদুল আওয়াল (৫৫), পাসপোর্ট নম্বর বি কিউ ০৯৬৪১৪৫।

সিরাজগঞ্জ জেলার এনায়েতপুর দৌলতপুরের মোছাম্মৎ পারভিন ইসলাম (৩৯), পাসর্পোট নম্বর বিএন০২৩০৬৮২।

নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জের দুর্গাপুর সেকান্দর মিয়ার বাড়ির ফয়েজ আহমদ (৭২), পাসর্পোট নম্বরবিপি ০১৮৫৩১৮। কুমিল্লা জেলার বরুড়া ভুঁইয়া বাড়ির সুলতান আহমদ (৭১), পাসর্পোট নম্বর বি কিউ০৮৮৩৮০৪।

চলতি হজ মৌসুমে সৌদি আরবে হজ করতে এসে এখন পর্যন্ত মক্কায়–২৩, মদিনায়–৫ ও জেদ্দায় ১জনসহ সর্বমোট ২৯ বাংলাদেশি ইন্তেকাল করেছেন। এরমধ্যে ৬ জন নারী ও ২৩ জন পুরুষ।

শুক্রবার বিকাল পর্যন্ত মক্কা বাংলাদেশ হজ অফিসের তথ্যমতে বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ০১ হাজার ২০৩ জন হজযাত্রী সৌদি আরবের মক্কা ও মদিনায় পৌঁছেছেন। তম্মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় এসেছেন৬ হাজার ৭৫৫ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এসেছেন ৯৪ হাজার ৪৪৮ জন। আগামী ২০ আগস্ট পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*