Home | দেশ-বিদেশের সংবাদ | প্রয়োজনে জ্বালানি তেলের দাম কমানো হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রয়োজনে জ্বালানি তেলের দাম কমানো হবে : প্রধানমন্ত্রী

shake-hasina-b20160217125602

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের ধার-দেনা শোধ হলে প্রয়োজনে জ্বালানি তেলের দাম কমানো হবে। তিনি জানান, ভর্তুকি দিয়ে জ্বালানি তেল বিক্রি করতে গিয়ে বিপিসির ঋণের ১৫-১৬ হাজার কোটি টাকা এখনো বাকি আছে।

জাতীয় সংসদে বুধবার স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজি সেলিমের প্রশ্নের উত্তরে  একথা বলেন তিনি।

হাজি সেলিম দাম কমানোর পক্ষে যুক্তি দেখান, তেলের দাম কমানো হলে মানুষ গ্যাস ব্যবহার করবে না। তখন গ্যাস শিল্পক্ষেত্রে দেয়া যাবে।

২০১৩ সালে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি ব্যারেল জ্বালানি তেলের দর বেড়ে ১২২ ডলারে ওঠার পর বাংলাদেশেও দাম বাড়ানো হয়। সেই হারে বর্তমানে প্রতি লিটার অকটেন ৯৯ টাকা, পেট্রোল ৯৬ টাকা, কেরোসিন ও ডিজেল ৬৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এরপর গত দুই বছর ধরে জ্বালানি তেলের দাম পড়তে পড়তে ৪০ ডলারের নিচে নামলেও দাম সমন্বয় করেনি সরকার। তেলের দাম না কমানোর পক্ষে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) এতদিনের লোকসান তুলে আনার যুক্তি সরকারের পক্ষ থেকে দেখানো হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যখন বিশ্ববাজারে ডিজেলের দাম অতিরিক্ত ছিল, তখন আমরা সাবসিডি দিয়ে ডিজেল বিক্রি করেছি। যার ফলে আমাদের পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের হাজার হাজার কোটি টাকা লোন হয়ে গেছে। তখন তো কেউ বলেননি, আমরাও ডিজেলের দাম বাড়াই। এই সময় বোধহয় কিছুটা আমরা সাশ্রয় করতে পারছি। এখন পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন আয় করে লোন শোধ করছে। ৩৮ হাজার কোটি টাকা লোন, ইতোমধ্যে ৫ হাজার কোটি টাকা লোন শোধ করা হয়েছে এবং আরো শোধ করতে হবে। এছাড়া ভ্যাট, ট্যাক্সও রয়েছে সেগুলোও পরিশোধ করতে হবে। প্রায় ১৫/১৬ হাজার কোটি টাকা শোধ করতে হবে।’

তিনি বলেন, এতদিন যে আমরা ডিজেল কেনার জন্য ভর্তুকি দিলাম, লোন নেওয়া হল, সেগুলো আগে শোধ করে দেব। অর্থ্যাৎ ধার দেনা শোধ করার পরে প্রয়োজন হলে আমরা দাম কমাব।

বিনিয়োগের জন্য বড় বড় দেশ লাইন দিচ্ছে
একই ব্যক্তির প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য বিশ্বের বড় বড় দেশ লাইন দিচ্ছে  জানিয়ে  শেখ হাসিনা বলেন, বিদেশি বিনিয়োগের জন্য স্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করেছি, তাই বিনিয়োগও আসছে। দেশে-বিদেশি বিনিয়োগ হচ্ছে। জাপান, চীন, ভারত থেকে শুরু করে কোরিয়া সবাই বিনিয়োগ করছে। জাপান ৬ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। বড় বড় দেশ লাইন দিচ্ছে বিনিয়োগ করার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*