Home | লোহাগাড়ার সংবাদ | দরবেশহাট ডিসি রোডের বেহাল দশায় জনদূর্ভোগ

দরবেশহাট ডিসি রোডের বেহাল দশায় জনদূর্ভোগ

318

এলনিউজ২৪ডটকম : লোহাগাড়ার দরবেশহাট ডিসি রোডের করুণ দশার ফলে দিন দিন জনদূর্ভোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ভূক্তভোগীরা বলছেন, সমস্যাটি দিন দিন প্রকট আকার ধারণ করছে। বিভিন্নস্থানে আবেদন নিবেদন করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। অনতিবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।

জানা যায়, ২০১৫ সালের প্রথম দিকে রাস্তাটি সংস্কারের জন্য টেন্ডার আহবান করা হয়েছিল এবং ঠিকাদার কার্যাদেশ পাওয়ার পর মালপত্র নিয়ে আসা হয়েছিল। কিন্তু রহস্যজনক কারণে কোন কাজ হয়নি। ঠিকাদার অভিযোগ করেছেন তার কাছে সংশ্লিষ্টরা মোটা অংকের টাকা দাবী করায় তিনি কাজ করা থেকে বিরত থাকেন।

অপরদিকে, লোহাগাড়া উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, নিুমানের সামগ্রী ও সিডিউল বহির্ভূত মালামাল দিয়ে কাজ করার প্রস্তুতি নেয়ায় ঠিকাদারকে মালামাল আনার জন্য বলা হয়েছিল। কিন্তু ঠিকাদার তা না মেনে মালপত্রগুলি সরিয়ে নিয়ে যায়। ফলে রাস্তা সংস্কারের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। যা অদ্যাবধি অব্যাহত রয়েছে। ঠিকাদার এ ব্যাপারে আদালতে মামলা করলে দীর্ঘদিন ধরে কোন টেন্ডার আহবান করা হচ্ছে না। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন থাকায় রাস্তা সংস্কারের কাজ বন্ধ রয়েছে। কবে নাগাদ মামলা নিষ্পত্তি হবে তা কেউ বলতে পারছেন না।

সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, লোহাগাড়া বটতলী মোটর ষ্টেশন থেকে খান মোহাম্মদ সিকদার পাড়ার পড়ে লোহাগাড়া হেলথ সেন্টার পর্যন্ত অসংখ্য গর্ত রয়েছে। বৃষ্টি হলে গর্তগুলি পুকুর সদৃশ্য হয়ে যায়। রাস্তাটি ব্যবহার করে কলাউজান, হিন্দুহাট, কানুরামবাজার, কলাউজান স্কুল, এমচরহাট, দরবেশহাট, শাহপীর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, লোহাগাড়া বটতলী মোটর ষ্টেশন পর্যন্ত এলাকাবাসীরা যাতায়াত করেন। বৃষ্টি হলে রাস্তার নিশানা দেখা না যাওয়ায় অনেক সময় যানবাহন রাস্তা থেকে ছিটকে পড়ে দূর্ঘটনা ঘটে। রোগী ও অসুস্থ লোকজনকে হাসপাতালে নেয়ার পথে তারা আরো অসুস্থ হয়ে পড়েন। বর্তমানে শুষ্ক অবস্থায় গর্তগুলো দৃশ্যমান হয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লোকজন রাস্তাটি ব্যবহার করছেন।

এ রাস্তাটি লোহাগাড়া বটতলী থেকে শুরু হয়ে এমচরহাট পর্যন্ত বিস্তৃত। এরপর কেয়াজুপাড়া ও কিল্লাখোলা পর্যন্ত সংযোগ সড়ক রয়েছে। এমচরহাট ও সন্নিহিত এলাকা থেকে বালুভর্তি ভারী গাড়ি প্রতিদিন এ রাস্তা অতিক্রম করে। করছে। রাস্তাটি রক্ষার জন্য বাস্তব প্রদক্ষেপ জরুরী বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*